• বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৫:৩৫ পূর্বাহ্ন |

স্মার্টফোন কিনতে শিক্ষার্থীদের ঋণ দেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সিসি নিউজ ডেস্ক ।। শিক্ষা কার্যক্রম একেবারেই বন্ধ। শিক্ষার্থীদের মাঝে নানান হতাশা আর বিষন্নতা যেন গ্রাস করেছে। সব কিছুই আজ তছনছ। করোনার থাবায় হানা দিয়েছে সর্বত্র। দেশব্যাপী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় শুরু থেকেই বন্ধ রয়েছে শিক্ষা কার্যক্রম। এতে স্থবির হয়ে পড়েছে শিক্ষা ব্যবস্থা। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় যে বহুমাত্রিক ক্ষতি সাধিত হয়েছে, তা পুষিয়ে নেওয়া দেশের জন্য একটি মহা চ্যালেঞ্জ। শিক্ষক ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন শ্রেণিকক্ষের বাইরে থাকায় বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী পড়াশোনা ভুলে যাচ্ছে। জ্ঞানের বড় ঘাটতি নিয়ে উপরের ক্লাসে উঠছে।

পরীক্ষা নিতে না-পারায় শেখার দক্ষতা যাচাই করাও সম্ভব হচ্ছে না। সেই শিক্ষা ব্যবস্থাকে সচল করার জন্য নানা উদ্যোগ নিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)। জানাগেছে এ কারণে অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চালানোর জন্য স্মার্টফোন কিনতে ঢাবিতে বিনা সুদে ঋণ দেয়ার কথা জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে শর্ত হলো ওই শিক্ষার্থী অস্বচ্ছল হতে হবে। অন্যতায় ঋণ দেয়া হবে না ।

সংশ্লিস্টরা আরো জানান, আবেদন করলে প্রতি জন আট হাজার টাকা করে ঋণ পাবেন। তবে তাতে কিছু শর্ত আরোপ করা হয়েছে। ওই শর্ত মেনে চলতে হবে। প্রসঙ্গত এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ৮ হাজার ৫৫৬ শিক্ষার্থী ঋণের জন্য আবেদন করেন।

তাদের আগামী ১৫ জুনের মধ্যে আবারও আবেদন করতে বলা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে। গত ৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব পরিচালকের স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ ঋণ পেতে কিছু শর্তের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। ওই সব শর্ত মানতে হবে।

শর্তগুলো হলো:
১. ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক/স্নাতকোত্তর পর্যায়ে অধ্যয়নরত অস্বচ্ছল শিক্ষার্থী, যাদের নাম ‘শিক্ষার্থীদের সফট লোন’ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত আছে, কেবল তারাই আবেদন করতে পারবেন।

২. ঋণের সর্বোচ্চ সিলিং আট হাজার টাকা যা সুদমুক্ত। এসব টাকা সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীর ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে প্রদান করা হবে।

৩. শিক্ষার্থীদের জরুরি ভিত্তিতে সোনালী/জনতা/অগ্রণী ব্যাংকের যেকোনো একটি শাখায় নিজ নামে ব্যাংক হিসাব খুলে নিজ নিজ বিভাগ/ইনস্টিটিউটকে জানাতে হবে।

৪. সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীকে স্মার্টফোন কেনার ভাউচারটি বিভাগ/ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে সফট লোন অনুমোদন কমিটির সদস্য সচিবের কাছে জমা দিতে হবে।

৫. ঋণের অর্থ সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের সময়ে এককালীন অথবা চারটি সমান কিস্তিতে পরিশোধ করতে হবে।

৬. ঋণের সম্পূর্ণ অর্থ ফেরত না দেওয়া পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীর নামে কোনো ট্রান্সক্রিপ্ট ও সাময়িক/মূল সনদ ইস্যু করা হবে না।

৭. ১৫ জুনের মধ্যে শিক্ষার্থীদের সফট লোন তালিকায় নিবন্ধিত শিক্ষার্থীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (www.du.ac.bd) ওয়েবসাইটে অন্তর্ভুক্ত Du Forms এর অন্তস্থ Student Softloan থেকে ডাউনলোড করে পূরণের পর নিজ নিজ বিভাগ/ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান/পরিচালকের নিকট প্রেরণ করতে হবে।

তবে অনেকেই বলেছেন, এই প্রক্রিয়ায় নানান অসংগতি থাকবেই। কারণ কে অসচ্ছল আর কে স্বচ্ছল তা মূল্যায়নের তেমন কোন সুযোগ নেই। ওই খানেই সমস্যা। এক্ষেত্রে যতটা স্বচ্ছতা ধরে রাখা যায় তাতেই ভাল।

শিক্ষাব্যবস্থার এমন এক মহাসংকটে সবার কাছে এখন একটাই প্রশ্ন: শিক্ষার এ ক্ষতি কীভাবে পোষানো সম্ভব হবে? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক এসএম হাফিজুর রহমান বলেন, ‘ক্ষতি কতটুকু হলো, তা পর্যালোচনা করতে হবে আগে। এরপর তার ভিত্তিতে ক্ষতি পোষানোর জন্য মহাপরিকল্পনা করে এগোতে হবে। পরীক্ষা ছাড়া বা সামান্য কিছু পড়িয়ে উপরের শ্রেণিতে ওঠালে দীর্ঘমেয়াদে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।’


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!