• রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন |

ডোমারের রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ ও নেতৃত্বে ভাটা

।। ইয়াছিন মোহাম্মদ সিথুন ।। গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে (আরপিও) রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য সর্বস্তরে ৩৩ শতাংশ নারীর অংশগ্রহণের বাধ্যবাধকতা ছিল। নির্বাচন কমিশনের  চাপে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের পাঁচ নং ধারার চার উপ ধারায় ৩৩ শতাংশা নারী সদস্য অন্তভূক্ত করতে হবে বলে উল্লেখ আছে, আর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) এর গঠনন্ত্রের ছয় নং ধারার  খ উধারায় ১০ শতাংশ নারী সদস্য অন্তর্ভূক্তির কথা উল্লেখ আছে। তবে এই সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধির কথাও বলা হয়েছে। দুই দলের তৃণমূলের কমিটিতে তা উপেক্ষিত। তৃণমূলে নারীর অংশগ্রহণ ও নেতৃত্বে নারীদের দিয়ে হবে না, পুরুষদের এ মনোভাব এবং প্রতিক্রীয়াশীল সমাজ ব্যবস্থাকেও দায়ী করেছেন নারীরা।  সংগঠনগুলোতে দলীয় কোন্দল ও নারীদের নিজেদের প্রতি আত্মবিশ্বাসের অভাবও কেউ কেউ উল্লেখ করেছেন। তবে পুরুষরা নারীদের দূর্বল মানষিকতাকে দায়ী করেছেন। নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ ও নেতৃত্ব তাদের দলীয় গঠনতন্ত্রের সাথে কোনভাবেই মিলছে না। এখানে আওয়ামী লীগের ৭১ সদস্যের কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, দুই জনের দুই স্ত্রী ও আর এক নারী মিলে মাত্র তিনজন সদস্য। আর বিএনপি’র অবস্থা তো আরো নাজুক। তাদের ১৮৩ সদস্যের বিশাল কমিটিতে মাত্র দুই জন নারী সদস্য। তারা একজন সাংগঠনিক সম্পাদকের স্ত্রী ও একজন যুগ্ন সম্পাদকের মেয়ে। দুই জনেই দলীয় কার্যক্রমে খুব একটা অংশ নেয় না। বিএনপি’র গঠনতন্ত্রে ১০১ সদস্য বিশিষ্ঠ কমিটি হওয়ার কথা থাকলেও ৮২ জন বেশী সদস্য রয়েছে। দুই দলের নারী ও পুরুষ কয়েকজন নেতাকর্মীর সাথে ডোমারের রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ  ও নেতৃত্ব নিয়ে কথা হয়।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মিসেস আরমিন আক্তারের সাথে কথা হয়। তিনি বলেছেন, নারীরা কাজ করতে আগ্রোহী আছে। কিন্তু উপজেলা পর্যায়ে নারীদের দলীয় কাজ করার জন্য ‍উপযুক্ত পরিবেশ তৈরী হয় নাই। দলীয় কোন্দলের কারণেই নারীরা রাজনীতিতে আসতে ভয় ও সংকোচ করছে। দলে নেতাকর্মীরা দুই ভাগে বিভক্ত। এ পরিবেশে রাজনীতিতে আসলেই এক পক্ষের হয়ে অন্য পক্ষের বিরোধীতা করতে হয়। ডোমার একটা ছোট জায়গা। সবাই সবার পরিচিত। এক নেতার পক্ষে গিয়ে আরেক নেতার বিরোধীতা করতে নারীরা পছন্দ করছে না। তিনি আরো বলেন, আমাদের এলাকার সমাজ ব্যবস্থা প্রগতিশীল নয়, প্রতিক্রীয়াশীল। নারীরা রাত ১০ টায় বাড়ি ফিরলে পরিবারের মধ্যে অশান্তি তৈরী হয়। আশপাশের মানুষও সমালোচনা করে। এ বিষয়গুলোর উত্তরন হলেই ডোমরের রাজনীতিতে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি মনে করেন।

উপজেলা বিএনপি’র মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মোছাঃ চম্পা বেগম (৩৮) বলেন, কমিটি ঘোষনার তিন হতে চার টি মিটিংয়ে আমাকে ডাকা হয়েছিল। আমি দলীয় কার্যক্রমে অংশগ্রহণও করেছিলাম। অসুস্থ্য থাকার কারেণে একটি সভায় যেতে পারি নাই। তারপর হতে প্রায় ছয় মাস হয়ে গেল আমাকে কেউ ডাকে না। আর আমিও যাই না। স্বামী মিজানুর রহমান তুলু উপজেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক হওয়ার কারণেই তিনি বিএনপি’র রাজনীতিতে জড়িত হয়েছেন বলে জানান।

উপজেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ বীন আমীন সুমন জানিয়েছেন, উপজেলা বিএনপি’র কমিটিতে যে দুই জন নারী প্রতিনিধি আছে। তাদের তিনি কোন রাজনৈতিক কর্মকান্ডে দেখেন নাই। তিনি বলেছেন, শাষক দলের দমন-পীড়ন, মামলা-হামলাসহ গনতান্ত্রিক অধিকারহরণের কারণে তৃণমূলে নারীরা অংশ নিচ্ছে না। নারীদের রাজনীতিতে অংশগ্রহনের জন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও গনতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠা করা।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমীন জানিয়েছেন, তৃণমূলে মুলত ছাত্র রাজনীতিতে মেয়েরা সম্পৃক্ত থাকলেও তাদের বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার সম্মূখীন হতে হয়। যারা রাজনীতি করে, বিয়ের পর তারাও আগ্রোহ হারিয়ে ফেলে। এটি সবচেয়ে বড় কারণ বলে তিনি মনে করেন। আর মফস্বল এলাকায় ইচ্ছে থাকলেও সামাজিক আলোচনা সমালোনার ভয়েও নারীরা রাজনীতিতে আসছে না। তবে নারীদের রাজনীতে সম্পৃক্ত করার জন্য উপজেলা আওয়ামী লীগ কাজ করছে। তিনি দ্রুত নারীদের রাজনীতিতে সক্রিয় করা সম্ভব হবে মনে করেন।

উপজেলা নারী নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডেইজী নাজনীন মাশরাফি মনে করেন, রাজনৈতিক দলগুলো এখনো সব ধরনের কমিটিতে কার্যকর সংখ্যায় নারী নেতৃত্ব ও নারীর অংশগ্রহণ আনতে পারছে না। তার বড় কারণ দলগুলোর তৃণমূলে এখনো নারী নেতৃত্বের বিষয়টি অবহেলার চোখেই দেখা হয়।

তিনি বলেছেন, তৃণমূল রাজনীতিতে যদি গুনগত এবং সংখ্যাগতভাবে নারীদের প্রতিনিধিত্ব যথাযথভাবে না থাকে তাহলে তো জাতীয় রাজনীতিতেও এর প্রভাব থাকবে। কমিটিতে নারীদের শুধু সংখ্যায় আনলেও হবে না। তাদের সিন্ধান্ত গ্রহনের প্রকৃয়াতেও আনতে হবে।

তিনি আরো বলেছেন, সবাই যখন চাইবে নারীরা রাজনীতিতে আসুক, সিন্ধান্ত নিক। তখন কিন্তু রাজনীতিকেই নারীবান্ধব হিসাবে গড়ে তুলতে হবে। আমাদের রাজনীতিতে পেশী শক্তির প্রয়োগ, মারামারি সংস্কৃতির পরিবর্তন করতে হবে। তাহলে রাজনীতিতে নারীদের অংশগ্রহণ ও নেতৃত্ব বাড়বে।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক গোলাম কুদ্দুস আইয়ুব বলেছেন, স্থানীয় সরকারে এক–তৃতীয়াংশ নারী সদস্য রাখার কথাটি রাজনৈতিক নেতৃত্ব ঢাকঢোল পিটিয়ে প্রচার করে থাকেন। কিন্তু নারী জনপ্রতিনিধি নির্বাচনের কাঠামোটাই এমনভাবে করা হয়েছে, যাতে তাঁরা নির্বাচিত হলেও ক্ষমতায়ন থেকে বঞ্চিত হন। সাধারণ আসনে নির্বাচিতদের নির্দিষ্ট নির্বাচনী এলাকা আছে। নারী সদস্যদের কার্যত তা নেই। বলা হয়েছে, একজন নারী সদস্য তিনটি ওয়ার্ডের প্রতিনিধিত্ব করবেন। কিন্তু ওই তিন ওয়ার্ডে একজন করে পুরুষ সদস্যও আছেন। তাহলে নারী সদস্যদের নির্বাচনী এলাকা কোনটি? ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জাতীয় সংসদ পর্যন্ত নারী প্রতিনিধিরা এই সমস্যার মুখোমুখি। তাঁদের পদ আছে, কাজ নেই।

১৯৯১ সাল থেকে মাঝখানের দুই বছর (২০০৭–২০০৮) বাদ দিলে ২৮ বছর ধরে দেশ নারী নেতৃত্বের অধীন। প্রধানমন্ত্রী নারী। সংসদে বিরোধী দলের নেতা নারী। গত দুটি সংসদে স্পিকারও নারী। কিন্তু নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতা বলতে যা বোঝায়, তা অনুপস্থিত। অথচ প্রতিবেশী নেপালে নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে। তারা এমন আইন করেছে যে স্থানীয় সরকারের সব প্রতিষ্ঠানে প্রধান ও উপপ্রধানের পদটি সমভাবে ভাগ করা আছে। প্রধান পদে একজন পুরুষ এলে উপপ্রধান হবেন নারী, আবার প্রধান নারী হলে উপপ্রধান হবেন পুরুষ। বর্তমানে নেপালের প্রেসিডেন্ট একজন নারী।

নারী নেতৃত্বের দেশে নারীরা রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে অনেক পিছিয়ে আছে। তারা পিছিয়ে আছে সরকারি–বেসরকারি চাকরিতে, ব্যবসা–বাণিজ্যে। শিক্ষাঙ্গনে নারী প্রায় সমান সমান হলেও কর্মক্ষেত্রে তাদের অংশগ্রহণ অনেক কম। একমাত্র তৈরি পোশাকশিল্পেই নারীর অংশগ্রহণ পুরুষের চেয়ে বেশি।

এই বাস্তবতায় নারীর ক্ষমতায়নের গালভরা বুলি আওড়ানো বাস্তবতার সঙ্গে খাপ খায় না। সরকার বা রাজনৈতিক দলের শীর্ষ পদে নারী থাকলেই প্রমাণিত হয় না নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন হয়েছে। রাজনৈতিক ক্ষমতার সঙ্গে অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষমতার বিষয়টি ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বাংলাদেশে নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন হয়নি, ক্ষমতায়ন হয়েছে উত্তরাধিকারের। যেদিন নারী ঘরে–বাইরে লাঞ্ছনা ও নিগ্রহের শিকার হবেন না, সংরক্ষিত আসনের তকমা নিয়ে তাঁকে সংসদ ঢুকতে হবে না এবং বাসে–ট্রেনে–লঞ্চের অর্ধেক আসন নারী যাত্রী দ্বারাই পূর্ণ হবে, সত্যিকার অর্থে সেদিনই নারীর ক্ষমতায়ন হবে এবং রাজনীতিতে তৃণমূল থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত নারীর গুনগত অংশগ্রহণ ও নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা পাবে।

লেখক: জেলা প্রতিনিধি, দীপ্ত টিভি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ