• রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ০১:১৭ পূর্বাহ্ন |

প্রবাসীদের ইমো হ্যাক করে প্রতারনা

।। এম এ কবির ॥ মাসুদ রানা, বয়স ২৭বছর। এক সময় চালাতো রিকশা। মাঝে মধ্যে দিন মজুরের কাজ করে টাকা উপার্জন করতো। কিন্তু এই কাজ করে যে আয় হতো তাতে তার পোষাতো না। তাই এসবের আড়ালে প্রতারণা বিদ্যাটা আয়ত্ত করে নেয় সে। কীভাবে কৌশলে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে টাকা কামাতে হয় সেই বুদ্ধি অল্প দিনেই রপ্ত করে। তারপর রিকশা চালানো ও দিনমজুরের কাজ ছেড়ে শুরু করে তার কেরামতি।
সে প্রবাসীদের মোবাইল নম্বর যোগাড় করত। এরপর একটি গ্রুপ খুলে সবাইকে যুক্ত করত। এরপর সে এই গ্রুপে নানান এসএমএস করত প্রবাসীদের মোবাইল ফোনে যখন তখন কল করত। এসব কারনে কেউ বিরক্ত বোধ করলে প্রতারক রানা গ্রুপে ম্যাসেজ দিয়ে বলতো যারা এই গ্রুপ থেকে বের হতে চান তাদের মোবাইলে একটি ম্যাসেজ যাবে। ওই ম্যাসেজে একটি নম্বর থাকবে সেই নম্বরটা দিলেই গ্রুপ থেকে বের হওয়া যাবে। সহজ সরল অনেক প্রবাসী না বুঝেই ওটিপি নম্বরটি রানাকে দিতেন। তারপরই তাদের আইডি হ্যাক হয়ে যেত। একই ভাবে কেউ মোবাইলে যাওয়া ওটিপি নম্বর দিলে রানা তার ইমো আইডি নিজের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে নেয়। পরে সুযোগ বুঝে তাদের পরিবারের কারো মোবাইলে ফোন দিয়ে বলে আপনার ভাই (বাবা ,স্বামী যাকে সে ফোনে পায়)সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মক ভাবে আহত হয়েছেন। জরুরি অস্ত্রোপাচারের জন্য দুই লাখ টাকা প্রয়োজন। পরিবারের লোকেরা কোন কিছু না ভেবে তার দেওয়া বিকাশ নম্বরে টাকা পাঠিয়ে দেন। বিদেশে শ্রমিক পর্যায়ে কাজ করেন এমন অনেক প্রবাসী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিভিন্ন আইডি কীভাবে নিরাপদ রাখতে হয় সে বিষয়ে তাদের জ্ঞান কম। আর এই সুযোগে মাসুদ রানার মতো কিছু চক্র তাদের টার্গেট করে। বেশ কয়েকটি চক্র বহু বছর ধরে এমন প্রতারণা করে আসছে। কিন্তু বেশির ভাগ ভুক্তভোগীই ঝক্কি-ঝামেলা এড়াতে আইন শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর কাছে অভিযোগ করেন না। তারা মনে করেন যা হবার তা হয়ে গেছে এখন থানাপুলিশ করে বাড়তি ঝামেলা পোহাতে হবেনা। আর ভুক্তভোগীরা অভিযোগ না করার প্রতারকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যায়না। এছাড়া প্রতারকরা যেসব বিকাশ নম্বর দিয়ে ভুক্তভোগীর কাছ থেকে টাকা ও লেনদেন করে সেগুলো ও প্রতারণার মাধ্যমে করা। কুড়িয়ে পাওয়া অথবা চুরি করা ভোটার আইডি কার্ড ব্যবহার করে তারা বিকাশ নম্বর রেজিস্ট্রেশন করে। একারণে লেনদেনের নম্বর দিয়ে প্রতারকদের ধরা সম্ভব হয়না। প্রতারক মাসুদের কাছ থেকে ২১টি ভুয়া নিবন্ধিত সিমও ৯টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে সাইবার টিম। এছাড়াও ইমোতে প্রতারণার আরেক মাধ্যম হচ্ছে সুন্দরী মেয়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সুন্দরী মেয়েরা ইমো নম্বর দিয়ে প্রবাসীদের আকৃষ্ট করে । ইমোতে ভিডিও কলে তাদের সাথে কথা বলতে হলে আগে নিদৃষ্ট পরিমাণ টাকা বিকাশ করতে হবে। অনেক মেয়ে টাকা নেওয়ার পর ফোন বন্ধ কওে দেয়। তাদের প্রতারনা এ পর্যন্তই। আবার কেউ আছে আরো ভয়ঙ্কর । তারা প্রবাসীদের সাথে অন্তরঙ্গভাবে ভিডিও কলে কথা বলে এবং রেকর্ড করে রাখে । পরবর্তীতে সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে হাতিয়ে নেয় লক্ষ লক্ষ টাকা।
তিন বছর আগে রানা রাত দিন রিকশা চালাতো। অভাব অনটনে দিনমজুরের কাজ করতো। কিন্তু ইমো আইডি হ্যাকের কৌশল আয়ত্ত করে রাতারাতি ধনী হয়ে যায়। অভাব অনটনের সংসারে যেখানে দুবেলা খাবারই জুটতোনা সেখানে রানা চলাফেরাও বাড়িঘর দেখলে যে কেউ অবাক হবে। তার রাতারাতি ধনী হওয়ার ঘটনায় প্রতিবেশীরাও অবাক। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অবস্থান করা বাংলাদেশিরা মূলত ইমো আইডি ব্যবহার করে পরিবার পরিজনের সঙ্গে কথা বলে। আর রানা প্রবাসীদের টার্গেট করে এমন প্রতারণা করতো। তাই ইমো আইডি ব্যবহারের ক্ষেত্রে সবাইকে সতকর্ থাকতে হবে। অপরিচিত কেউ গোপন পিন নম্বর চাইলে এড়িয়ে চলতে হবে। বিভিন্ন গ্রুপের সঙ্গে যুক্ত করলে সেটি থেকে ও বেরিয়ে আসতে হবে সাথে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারে সতর্ক হতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ