• শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১০:৩৩ অপরাহ্ন |

ডিমলায় সামান্য বৃষ্টিপাতে পানিবন্দি রুপাহার আশ্রয়নের বাসিন্দারা

সিসি নিউজ ।। উপহারে পাওয়া রুপাহার আশ্রয়নের বাসিন্দারা সামান্য বৃষ্টিতেই পানিবন্দি হয়ে পড়ছে। বৃষ্টি এলেই বাড়ির চার পাশে পানি থই থই করছে। আশ্রয়ন থেকে বের হওয়ার প্রসস্ত রাস্তা না থাকায় চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে পরিবারগুলো।

রুপাহারা গ্রামটি নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নে। এখানে দুই কক্ষবিশিষ্ট ৫০টি বাড়িতে ভূমিহীন ও গৃহহীন হতদরিদ্র ৫০টি পরিবার বসবাস করছে। এক একর জমিতে প্রায় ৫ মাস আগে বাড়ী নির্মাণ কাজ শেষে হলেও নেই ওইসব পরিবারের যাতায়াতের জন্য প্রসস্ত রাস্তা। প্রকল্পের পুকুরের পাড় দিয়ে মাত্র দেড় ফিট চওড়া রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে শিশু-বৃদ্ধদের নিয়ে আতঙ্কে জীবনযাপন করছে তারা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নিচু জায়গাতেই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করায় সামান্য বৃষ্টিতে বাড়িতে পানি ঢুকে পড়ছে। চারিদিকে পানি জমে থাকায় সাপ, পোকা-মাকড়ের ভয়ে রাত কাটাচ্ছেন এই অসহায় মানুষগুলো।

ফেন্সী বেগম নামে একজন সুবিধাভোগী বলেন, তার কোনো জমি-জমা নেই। প্রধানমন্ত্রী তাকে ঘর করে দিয়েছেন। কিন্তু প্রশাসনের লোকজন এমন এক জায়গায় ঘর তৈরি করে দিয়েছেন যেখানে অল্প বৃষ্টিতেই পানি জমে এবং বাড়িতে পানি ঢুকে পড়েছে। যাতায়াতের জন্য রাস্তা নেই। চলাচলের জন্য একমাত্র সরু গলিটিও ডুবে গেছে পানিতে । তিনি বলেন বৃষ্টিতে রাস্তা, বাড়ীর উঠান আর পুকুর পানি মিলেমিশে একাকার। খুব ভয়ে আছি আমার ছোট ছোট শিশুদের নিয়ে, পা পিছলে পুকুরে পড়লেই নিশ্চিত মৃত্যু ।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দা মোঃ মোশাররফ আলী বলেন, অল্প বৃষ্টিতেই ঘর দিয়ে পানি পড়ে, বাড়িতে পানি আসে। রান্নাঘর, বাথরুম, টিউবওয়েল, যাতায়াতের রাস্তা সব কিছুই পানিতে ডুবে যায়। এ সময় পায়খানার মল ভেসে বেড়ায় ঘরের মেঝেতে, সেসময় দুর্গন্ধে ঘরে থাকা দায়।

শহীদুল ইসলাম বলেন, রাস্তা না থাকায় বাধ্য হয়ে বাড়িতে নিয়ে আসতে পারি না আমার উপার্জনের একমাত্র নছিমন গাড়ীটি। চুরি যাওয়ার ভয়ে আমার ৭০ হাজার টাকার নছিমন গাড়িটি মাত্র ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। এখন উপার্জনের পথও বন্ধ। বাসিন্দারা আরোও অভিযোগ করেন, টিউবওয়েলের পানিতে প্রচুর আয়রন থাকায় পানি খেয়ে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। ঘরের টিন দিয়ে পানি পড়ছে। মেঝেতে বড় বড় ফাটল ধরেছে। একটু বাতাসেই ঘরের টিন উড়ে যাওয়ার উপক্রম হয়। ঘরের দেওয়ালেও ধরেছে ফাটল। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এখানে বসবাস করছি।

এ বিষয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মেসবাউর রহমান বলেন, নিচু জমি হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। তবে দ্রুত সে পানি নেমে যায়। যাতায়াতের রাস্তার জন্য বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। দীঘ ৫ মাস অতিবাহিত হওয়ার পরও যাতায়াতের রাস্তার ব্যবস্থা হয়নি কেন? এমন প্রশ্নের উত্তর তিনি এড়িয়ে যান। তিনি আরো বলেন ফটো আর ভিডিও দিয়ে কি সবকিছু প্রমান করা যায়।

কথা হয় ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায় জানান, আশ্রয়ন প্রকল্পের বসবাসকারীদের জন্য এলজিআরডি থেকে একটি বড় রাস্তা নির্মাণ করা হবে । আমি ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার সাথে কথা বলেছি । এ ছাড়া জলাবদ্ধতা নিরসনসহ অন্যান্য সমস্যাগুলো সমাধানে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জরুরী সভায় অবস্থান করায় মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তবে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের মনিটরিং অফিসার মোঃ আরিফুল হকের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জলাবদ্ধতা, রাস্তা ও পুকুরের পাড়ের সুরক্ষা দেয়ালের বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন একটা পরিকল্পনা তৈরী করে পাঠালে আমরা বিষয়টি অবশ্যই দেখবো।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!