• শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫৬ পূর্বাহ্ন |

ডিমলায় ভিজিডি কার্ডধারীদের চাল আত্মসাতের অভিযোগ

সিসি নিউজ ডেস্ক ।। সরকার দুর্নীতি ও অনিয়ম বন্ধ করার লক্ষ্যে অনলাইনে আবেদন করে এমআইএস পদ্ধতি চালু করলে টাকা দিয়েও কার্ড পাচ্ছেন না উপকারভোগী হতদরিদ্র নারীরা। নিজের নামে ভিজিডির কার্ড থাকলেও উপকারভোগীরা চাল উত্তোলন করতে পারছে না।

প্রতিটি কার্ডধারীর কাছে অনলাইনে আবেদন করার পর ছবি তোলার জন্য ৫শ টাকা নেওয়া হয়েছে। তারপর কার্ডধারীদের কাছে দাবি করা হয় আরও ৫ হাজার টাকা। অনেকে টাকাও দিয়েছেন কিন্তু কার্ড না দিয়ে চাল তুলে ভাগবাটোয়ারা করে খাচ্ছেন ইউপি তথ্যকেন্দ্রের উদ্যোক্তাসহ একটি প্রভাবশালীমহল। গত জানুয়ারি থেকে জুন মাস পর্যন্ত ৬ মাসের উপকারভোগীদের চাল তুলে ভাগবাটোয়ারার অভিযোগ উঠেছে।

ভিজিডি কার্ডধারীদের অভিযোগ টেপাখড়িবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হক ও তথ্যকেন্দ্রের উদ্যোক্তা মিজানুর রহমান উপকারভোগীদের কার্ড বিতরণ না করে চাল তুলে আত্মসাৎ করেছে। ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের ভিজিডির কার্ড বিতরণে অনিয়মের বিষয়টি রোববার জেলা প্রশাসকের কাছে কার্ডধারী লিখিত অভিযোগ দিলে ঘটনাটি ফাঁস হয়ে যায়।

টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের ৩৩৬ জন কার্ডধারী যে তালিকা উপজেলা প্রশাসন অনুমোদন দেয় সেখানে ১৭ জনের নামে আইডি নম্বর থাকলে নেই অভিভাবক (পিতা/ স্বামীর) নাম। ২০ জনের নাম সঠিক থাকলেও তাদের কার্ড দিয়ে চাল উত্তোলন করার সুযোগ দেওয়া হয়নি।

জানা যায়, ৩৩৬ জন উপকারভোগীর মধ্য ১৭ জন উপকারভোগীর অভিভাবকের নাম না থাকা ও ২০ জনের নাম সঠিক থাকলেও কার্ড প্রদান করা হয়নি মর্মে তারা অভিযোগ করেন। টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ময়না আক্তার (কার্ড নং-৩৭) জানায়, সরকার দরিদ্র ও হতদরিদ্র নারীদের খাদ্য সহায়তা করার জন্য ২ বছরের জন্য ভিজিডির ৩০ কেজি চাল বিতরণ করেন।

তিনি বলেন, অনলাইনে আবেদন করার পর যাচাই-বাছাই শেষে ছবি তোলার জন্য টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের তথ্যকেন্দ্রে গেলে ছবি তোলার জন্য ৫শ টাকা দিতে হয়। পরে তথ্যকেন্দ্রের উদ্যোক্তা মিজানুর রহমান আরও ৫ হাজার টাকা দাবি করেন। আমি টাকা দিতে না পারায় আমাকে ভিজিডির কার্ড দেওয়া হয়নি।

৬ মাস থেকে প্রতি মাসে মিজানুর রহমান ওই চাল উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছে। ৭নং ওয়ার্ডের হামিদা বেগম (কার্ড নং-৪৪) বলেন, ছবি তোলার জন্য মিজানকে ৫৫০ টাকা দেওয়ার পরও আরও কার্ডের জন্য ৫ হাজার দিলেও আজও কার্ড দেয়নি।

আছিয়া খাতুন ( কার্ড নং-৩৯) বলেন, অনলাইনে আবেদন করার পর আমার ছবি তোলার জন্য ৫৫০ টাকা দেওয়া হয়। পরবর্তীতে আরও ৪ হাজার টাকা দেওয়া হলেও আজও কার্ড দেয়নি চালও পাইনি।

জেলা প্রশাসক হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ভিজিডি কার্ডধারীদের অভিযোগের বিষয়টি ডিমলা ইউএনওকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। ই

উএনও জয়শ্রী রানী রায় বলেন, সরেজমিন তদন্ত করার জন্য উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তাকে বলা হয়েছে।

উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা পূরবী রানী রায় বলেন, করোনাকালে অফিস বন্ধ রয়েছে। মঙ্গলবার সরেজমিন বিষয়টি তদন্ত করার কথা থাকলেও জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে লিখিত অভিযোগের মূল কপি না আসায় তদন্ত করা যাচ্ছে না। উৎস: দৈনিক যুগান্তর


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ