• শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০২ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে বৃষ্টির অভাবে আমন চাষ ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা

।। এস এম জামান ।। নীলফামারীতে বৃষ্টিপাতের অভাবের কৃষকদের আমন ধানের চাষাবাদ ব্যাহত হচ্ছে। জমিতে পানি না থাকায় এ পর্যন্ত প্রায় ৫২ শতাংশ জমিতে আমনের চারা রোপন করতে সক্ষম হয়েছে। আমন চাষাবাদ মূলত প্রাকৃতিক বৃষ্টির উপর নির্ভরশীল। প্রকৃতির এমন বৈরী আবহাওয়ার কারনে আমন চাষীরা মাঠে সেচ পাম্প বা ডিজেল চালিত অগভীর নলকূপ বসিয়ে পানি সেচ দিয়ে আমন রোপনের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। সেচ দেওয়ার জন্য অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় করতে বাধ্য হচ্ছেন জেলার কৃষকরা।

নীলফামারী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র মতে, এবারে জেলায় আমন চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ১লাখ ১৩ হাজার ৭৫ হেক্টর জমিতে। এতে ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩লাখ ২৩ হাজার ৭০৯ মেট্রিক টন। বৈরী আবহাওয়া সত্ত্বেও আমন ধানের কৃষকরা নীচু জমিতে জমানো বৃষ্টি ও সেচের মাধ্যমে ইতিমধ্যে ৫৮ হাজার ৪০৫ হেক্টর জমিতে আমন চারা রোপন করেছে। যা লক্ষ্যমাত্রার ৫১ দশমিক ৬৫ শতাংশ জমিতে রোপন কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে আষাঢ় মাসের শুরুতে সামান্য বৃষ্টিপাত হলেও আর বৃষ্টির দেখা নেই নীলফামারীতে। প্রচণ্ড রোদ আর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে মাঝে মধ্যে। ফলে এই বৃষ্টিপাতে কৃষকের কোনো কাজে আসছে না। এতে করে নীলফামারীর সর্বত্র বর্ষাতেও খরায় পুড়ছে ফসলের মাঠ। যারা আগেই আমনের চারা রোপণ করেছেন সেগুলোও প্রচণ্ড দাবদাহে শুকিয়ে যাচ্ছে। প্রচণ্ড তাপের কার অনেক কৃষক বাধ্য হয়ে শ্যালো ও পাম্প চালিয়ে জমিতে পানি দিচ্ছেন এবং আমনের চারা রোপণ করছেন। বৃষ্টির পানিতে লাগানো আগাম আমন ক্ষেত পানির অভাবে চুপসে যাচ্ছে। যারা বৈদ্যুতিক মোটর ব্যবহার করছেন তারা বিদ্যুতের লুকোচুরির খেলায় পড়ে দিশেহারা হয়ে পড়ছেন।

নীলফামারীর ডোমার উপজেলার চিলাহাটির কৃষক মেরাজুল ইসলাম জানান, বিগত বছরগুলিতে বৃষ্টির পানিতে জমি চাষ করি এবং আমন ধানের চারা রোপণ করি। কিন্তু এ বছর তেমন বৃষ্টি না থাকায় অনেক সমস্যায় পড়তে হয়েছে। আমন রোপনের এ ভরা মৌসুমে গত এক সপ্তাহ ধরে জমিতে পানি জমে থাকার মতো কোনও বৃষ্টি হয়নি এ এলাকায়। তাই ডিজেল চালিত অগভীর নলকূপ দিয়ে জমিতে পানি ঢুকে হালচাষ শুরু করেছি।

নীলফামারী কৃষি বিভাগের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মহসিন রেজা রুপম জানান, জেলায় আমনের চারা লাগানো শুরু হয়েছে। বৃষ্টির অভাবে জমিতে শ্যালো মেশিনে সেচ দিয়ে কৃষকরা চারা রোপণের কাজ করছেন। সময় আছে তাই সমস্যা হবে না বলে জানিয়ে তিনি বলেন, কৃষকদের দোগাছি তৈরি করে রাখার জন্য বলা হয়েছে।

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান জানান, প্রতি বছর এই সময়ে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয় এবং আমন চাষ করতে তেমন কোন সমস্যা হয় না। কিন্তু বৃষ্টির অভাবে এ বছর কৃষকরা সেচ পাম্প কিংবা ডিজেল চালিত অগভীর মেশিন দিয়ে সেচের ব্যবস্থা করে রোপনের কাজ অব্যহত রেখেছে। তবে এতে কৃষকরা বাড়তি ব্যয়ের সম্মুখীন হলেও সঠিক সময়ে চারা রোপনের জন্য এ পদ্ধতি অবলম্বন করতে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া অফিসের দায়িত্বরত ইনচার্জ মো. মঞ্জুর রহমান জানান, গত এক সপ্তাহের মধ্যে এ অঞ্চলে দুইদিন বৃষ্টিপাত হয়েছে। ওই দুই দিনে বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ৮৩ মিলিমিটার। তবে ২/৩ দিনের মধ্যে এ অঞ্চলে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে বলে ঢাকাস্থ আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে।

নীলফামারী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, পরিমিত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় এখন পর্যন্ত নিচু জমি ও সেচ দিয়ে কিছু জমিতে কৃষকেরা আমনের চারা লাগাতে পেরেছেন। উঁচু জমিগুলোতে বৃষ্টির পানির অভাবে পড়ে আছে। আমরা চাষিদের সেচ দিয়ে আমনের চারা রোপণের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। তবে আগামী আগষ্ট মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত আমনের চারা রোপনের সময় আছে। এর মধ্যে আমাদের নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে। আমন চাষাবাদ ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা নেই বলে তিনি দাবি করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ