• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪৫ অপরাহ্ন |

স্বস্তির জয় পেল অস্ট্রেলিয়া

খেলাধুলা ডেস্ক ।। আজ আর বোলাররা ম্যাচ জেতাতে পারলেন না বাংলাদেশকে। বাংলাদেশের দেওয়া ১০৫ রানের লক্ষ্যটা ৩ উইকেট হাতে রেখে পেরিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। তবে একটা সময় পর্যন্ত ম্যাচে ভালোভাবেই ছিল বাংলাদেশ। ৬৫ রানের মধ্যেই অস্ট্রেলিয়ার ৫ উইকেট তুলে নিয়েছিলেন মোস্তাফিজ-নাসুমরা। যদিও শেষ রক্ষা হয়নি।

সপ্তম উইকেটে অ্যাস্টন টার্নার আর অ্যাস্টন অ্যাগারের দারুণ জুটিতে মূলত ম্যাচ থেকে বাংলাদেশকে ছিটকে দেয় অস্ট্রেলিয়া। ৬৫ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর দুজনের ৩৪ রানের জুটিতে ম্যাচটা নিজেদের দিকেই রাখে তারা। এ জুটি ভাঙে দলীয় ৯৯ রানে। পেসার শরিফুল ইসলামের বলে শামীম হোসেনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ২৭ রান করে অ্যাাগার ফেরেন দলের জয় প্রায় নিশ্চিত করে। বাকি কাজটা সেরেছেন টার্নার আর অ্যান্ড্রু টাই।

এই জয়ে টানা তিন হারের পর অবশেষে জয়ের দেখা পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। তবে বাংলাদেশের ১০৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আজও শুরুতেই উইকেট হারায় তারা। অফ-স্পিনার মেহেদী হাসানের প্রথম ওভারেই বোল্ড হন ম্যাথু ওয়েড (২)। চার ম্যাচে এ নিয়ে তিন বারই বাংলাদেশকে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন মেহেদী। শুরুতে উইকেট হারানোর চাপটা সরাতে চেয়েছিলেন ড্যান ক্রিস্টিয়ান। সফলও হয়েছেন তিনি।

প্রথম ওভারে মেহেদীকে চার মেরে ঝড়ের আভাস দিয়েছিলেন। আভাস দেওয়া ঝড়টা গেল সাকিবের ওপর দিয়ে। আজ ব্যাটিংয়ে তিনে উঠে আসা ক্রিস্টিয়ান চতুর্থ ওভারে সাকিবকে পাঁচটি ছক্কা মারেন। ক্যারিয়ারে এই প্রথম এক ওভারে পাঁচটি ছক্কা খেলেন এই বাঁহাতি স্পিনার। তবে ওভারে ৩০ রান দেওয়া এবারই প্রথম নয় সাকিবের জন্য। এর আগে ২০১৯ সালে জিম্বাবুইয়ান অলরাউন্ডার রায়ান বার্ল সাকিবের এক ওভারে ৩০ রান নিয়েছিলেন।

তবে পাওয়ার প্লের শেষ দুই ওভারে দুই উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচে ফেরে বাংলাদেশ। ওপেনার বেন ম্যাকডারমটকে (৫) এলবিডব্লু করে ফেরান নাসুম আহমেদ। পাওয়ার প্লের শেষ ওভার করতে এসে নিজের প্রথম ওভারেই উইকেটের দেখা পান মোস্তাফিজুর রহমান। বিপজ্জনক হয়ে ওঠা ক্রিস্টিয়ানকে কাভার পয়েন্টে শামীমের হোসেনের ক্যাচে পরিণত করে ফিরিয়েছেন ৩৯ রানে। ক্রিস্টিয়ানের বিদায়ের পর পরের ১৬ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে অস্ট্রেলিয়া। চাপ সামলিয়ে দারুণ ব্যাটিং করে বাকি পথটা এগিয়ে নিয়েছেন অ্যাস্টন টার্নার আর অ্যাস্টন অ্যাগার জুটি।

এর আগে ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার মিছিলে ১০৪ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ। রান করতে রীতিমতো সংগ্রাম করেছেন নাঈম-সাকিবরা। প্রথম তিন ম্যাচে (২,০,২) রানের পর আজ ৮ রানে ফিরেছেন ওপেনার সৌম্য সরকার। আরেক ওপেনার নাঈম ১৫তম ওভার পর্যন্ত উইকেটে থাকলেও ছন্দ পাননি একদমই। মিচেল সোয়েপসনের বলে উইকেটকিপার ম্যাথু ওয়েডের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ২৮ রান করে। এ জন্য অবশ্য নাঈমকে খেলতে হয়েছে ৩৬ বল।

সিরিজে প্রথমবারের মতো খেলতে নামা লেগ স্পিনার সোয়েপসন পরে ফিরিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও নুরুল হাসানকে। আজ অস্ট্রেলিয়ার সেরা বোলারও এই লেগ স্পিনার। চার ওভারে ১৪ রান দিয়ে উইকেট নিয়েছেন ৩টি। অস্ট্রেলিয়ান পেসার আর স্পিনারদের দারুণ সমন্বয়ে ১০০ রানের নিচে অলআউট হওয়ার শঙ্কায় ছিল বাংলাদেশ। শেষ দিকে অলরাউন্ডার মেহেদী হাসানের ১৬ বলে ২৩ রানের ঝোড়ো ইনিংসে ১০৪ রানের স্কোর গড়েও অবশ্য শেষ রক্ষা হয়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ