• শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৩ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে ইন্টারভিউ কার্ড ইস্যুর পরদিনই নিয়োগ পরীক্ষা

।। এস এম জামান ।। নীলফামারীতে দুইটি আলিম মাদ্রাসায় শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগের ইন্টারভিউ কার্ড ইস্যুর পরদিনই নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়ার অভিযোগ মিলেছে। এতে করে আবেদনকারী অনেক প্রার্থীই যথাসময়ে আবেদন করেও নিয়োগ পরীক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। মূলতঃ মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দিতে তড়িঘড়ি করে ওই নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয় বলে অভিযোগ।

এ ঘটনায় আবেদন করেও মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কারসাজির কারণে নিয়োগ পরীক্ষা দিতে না পেরে আবেদনকারীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। সেই সঙ্গে ওই দুইটি আলিম মাদ্রাসার শিক্ষক-কর্মচারী পরীক্ষা স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানে না নিয়ে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে সৈয়দপুর উপজেলার একটি মাদ্রাসায় অতি গোপনে সরকারি ছুটির দিনে নেওয়ায় নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে।

জানা গেছে, নীলফামারী সদরের চড় চড়া বাড়ী দারুস্ সুন্নত আলিম মাদ্রাসা এবং কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুড়া দোলাপাড়া আলিম মাদ্রাসায় শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগে জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। এদের মধ্যে নীলফামারী সদরের চড় চড়া বাড়ী দারুস্ সুন্নত আলিম মাদরাসা অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, অফিস সহকারি কাম হিসাব সহকারী ও নিরাপত্তা কর্মী ও আয়া পদে এবং কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুড়া দোলাপাড়া আলিম মাদরাসায় শুধুমাত্র আয়া পদে নিয়োগের জন্য ওই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। চড় চড়া বাড়ী দারুস্ সুন্নত আলিম মাদরাসা পাঁচটি পদে ৫৭জন প্রার্থী আবেদন পত্র জমা দেন। আর মাগুড়া দোলাপাড়া আলিম মাদরাসার আয়া পদের জন্য ৫জন আবেদন করেন।

এ দুইটি মাদরাসা শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্নের জন্যই নিয়োগ বোর্ডে মাদারাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের (ডিজি) প্রতিনিধি হিসেবে অধিদপ্তরের খুলনা বিভাগের পরিদর্শক মুহম্মদ হেলাল উদ্দিনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়। অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) কে এম রুহুল আমীন গত ১৯ আগস্ট ওই মনোনয়নপত্রে স্বাক্ষর করেন। আশ্চর্যের বিষয়, ডিজি তাঁর প্রতিনিধি মনোনয়নের দিনই অর্থাৎ ১৯ আগস্ট সংশ্লিষ্ট মাদরাসার সুপাররা নিয়োগের জন্য আবেদনকারীদের নামে ইন্টারভিউ কার্ড ইস্যু করেন।

আর এর ঠিক পরদিন ২০ আগস্ট (শুক্রবার) পবিত্র আশুড়ার সরকারি ছুটি দিনে অতি গোপনে নিয়োগের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। তড়িঘড়ি করে ইন্টারভিউ র্ক্ডা ইস্যু ও সংশ্লিষ্ট উপজেলার বাইরে সৈয়দপুর শহরের একটি মাদরাসায় অত্যন্ত গোপনীয়ভাবে ওই নিয়োগের লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা নেওয়ার কারণে অনেক আবেদনকারী নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নিতে ব্যর্থ হন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানান, চড় চড়া বাড়ী দারুস্ সুন্নত আলিম মাদ্রাসা পাঁচটি পদের মধ্যে চারটি পদের নিয়োগ পরীক্ষা নেওয়া হয়। আর প্রয়োজনীয় সংখ্যক প্রার্থী উপস্থিত না থাকায় ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ পদের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। তবে পছন্দের প্রার্থীকে মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া দেখে অনেক আবেদনকারী লিখিত পরীক্ষায় অংশ নিলেও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ না নিয়ে ফিরে যান।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক এক আবেদনকারী অভিযোগ করে বলেন, সরকারি সব নিয়মনীতি উপেক্ষা করে এভাবে তড়িঘড়ি করে ইন্টারভিউ কার্ড ইস্যুর একদিন পরেই পরীক্ষা গ্রহনের বিষয়ে আমি আইনের আশ্রয় নিবো।

নিয়োগ বোর্ড সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানান, ডিজির প্রতিনিধি মুহম্মদ হেলাল উদ্দিন তাঁর যাতায়াতের সুবিধার্থে নীলফামারী ও কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাদরাসার শিক্ষক-কর্মচারীর নিয়োগ পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বাইরে ২৫ কিলোমিটার দূরে সৈয়দপুর নিয়েছেন। সকালে তিনি ঢাকা থেকে বিমানযোগে সৈয়দপুরে এসে নিয়োগ পরীক্ষা শেষে বিকেলে বিমানের আবার ফিরে গেছেন।

এ ব্যাপারে চড় চড়া বাড়ী দারুস্ সুন্নত আলিম মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. শরিফুল ইসলাম (০১৩০৯১২৫১৪৪) ও মাগুড়া দোলাপাড়া আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ আব্দুল খালেক (০১৭২৪৬৭৫৭৬২) এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু ফোন রিসিভ না করায় কোন মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তবে চড় চড়া বাড়ী দারুস্ সুন্নত আলিম মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি শফিকুল ইসলাম তুহিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ পরীক্ষা হলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির আশঙ্কা ছিল। তাই সৈয়দপুরে পরীক্ষা কেন্দ্র করা হয়েছে। ২৭ লাখ টাকার বিনিময়ে চারটি পদের প্রার্থী আগেই নির্বাচিত করা হয়েছে- এমন অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেন।

নিয়োগ বোর্ডে উপস্থিত মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রতিনিধি খুলনা বিভাগের পরিদর্শক মুহাম্মদ হেলাল উদ্দীন জানান, পত্রিকায় প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অথবা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার কারনে ২৪ ঘন্টার মধ্যেই পরীক্ষা নেয়া হয়েছে। আবেদনকারীদের মধ্যে অর্ধেকের বেশি অনুপস্থিত বিষয়ে তিনি বলেন, ১৫ দিন আগে এডমিড কার্ড দিলেও অনেকে উপস্থিত হয়না। তাছাড়া মোবাইল ফোনে প্রার্থীদের জানানো হয়েছে বলে আমাকে প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা জানিয়েছেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ২৫/২৬ জনের মতো লিখিত পরীক্ষায় অংশ নিলেও মৌখিক পরীক্ষায় ১৫/১৬ জন অংশ নিয়েছে।

কথা হয় মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (প্রশাসন) মো. সাইফুল ইসলামের সাথে। তিনি জানান, নিয়ম-নীতির বিষয় বলতে গেলে অবশ্যই প্রার্থীদেরকে ৭ দিনের সময় দিতে হবে। তাদের যেমন অধিকার রয়েছে, তেমন কর্তৃপক্ষকে প্রার্থীদের প্রস্তুতি ও যাতায়াতের বিষয়টি দেখতে হবে। মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ কিজন্য এটা করেছে তা আমার জানা নেই। এছাড়া জেলা সদরে পরীক্ষার ভেন্যু না করার বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

নীলফামারী জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান চৌধুরী এ বিষয়ে কোন কিছুই জানেন না এবং তাকে অবগত করা হয়নি বলে নিশ্চিত করেছেন। তিনি নিয়োগের এ বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন বলে জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ