• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১০ অপরাহ্ন |

নীলফামারীতে প্রসূতি মাকে ক্লিনিকে পৌছালো পুলিশ

।। এস এম জামান ।। তখন রাত সাড়ে ৩টা। নীলফামারী শহরের গাছবাড়ি এলাকায় মূল সড়কের পাশে প্রসব বেদনায় ছটফট করছে এক প্রসূতি মা। তাদের গন্তব্য যে কোন ক্লিনিক বা হাসপাতালে। কিন্ত রাত গভীর হওয়ায় কোন বাহন না পেয়ে পরিবারের লোকজন হতাশায় ভুগছিল। এ সময় নীলফামারী থানার টহল পুলিশের সহায়তায় ওই প্রসূতি মাকে নিয়ে যাওয়া হয় শহরের একটি ক্লিনিকে। সেখানে সিজারের মাধ্যমে ভূমিষ্ট হয় পুত্র সন্তান। চিকিৎসা সেবায় প্রসূতি মা ও নবজাতক শিশু এখন সুস্থ্য রয়েছে। পুলিশের এ ধরনের ভাল কাজের জন্য সাধুবাদ জানিয়েছেন এলাকার সচেতন মহল।

থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বুধবার (২৫ আগস্ট) গভীর রাতে জেলার সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহমুদ উন নবী’র নেতৃত্বে এসআই আরমান, বাকিনুরসহ সঙ্গীয় ফোর্স বিশেষ অভিযান শেষে ওই পথে থানায় ফিরছিলেন। এ সময় শহরের গাছবাড়ি এলাকায় সড়কের পাশে বসে একজন মহিলার আহাজারির শব্দ শুনে গাড়ী থামান। কাছে গিয়ে দেখতে পান প্রসব বেদনায় কাতরাচ্ছেন মিম আক্তার (২০) নামে এক প্রসূতি মা। এতো রাতে নেই কোন যানবাহন না পেয়ে স্ত্রীর প্রসববেদনায় স্বামী মিজানুর রহমান তখন দিশেহারা। রোগীর অবস্থা বেগতীক দেখে তাৎক্ষনিক ভাবে প্রসূতি মা মিম ও তার স্বামী মিজানুরকে টহলরত পুলিশের গাড়ীতে তুলে নিয়ে সদরের হাজীগঞ্জ মাহবুবা মেমোরিয়াল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ডাক্তারের সাথে কথা বলে রক্ত লাগবে বলে জানান। তাৎক্ষণিক ভাবে পুলিশ সদস্যরা দুই ব্যাগ রক্ত যোগাড় করে ফেলেন।

ভোর রাত্রী পর্যন্ত পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহমুদ উন-নবীসহ সকল পুলিশ প্রসূতির সিজার শেষ না হওয়া পর্যন্ত হাসপাতালে অবস্থান করেন। এরই মধ্যে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে জন্ম নেয় ফুটফুটে চাঁদের মতো সুন্দর একটি পুত্র সন্তান। বর্তমানে মা ও নবজাতক দুজনই সুস্থ আছেন। মধ্যরাত থেকে শুরু করে ভোর রাত পর্যন্ত পুলিশের বিশেষ এই সেবায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন নবজাতকের বাবা মিজানুর রহমান। তিনি জানান, ওই দিন বিভিন্ন হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে রাতে সিজারের ব্যবস্থা করতে পারিনি বাড়ি ফিরে যাচ্ছি। কিন্তু ততক্ষণে অনেক রাত এক পর্যায়ে গাছবাড়ি এলাকায় অবস্থান নেই। কিন্তু কোনো যানবাহন ছিল না। হঠাৎ করে আমার আমার স্ত্রী প্রসব বেদনা ওঠে। আমি তো কি করবো ভেবে উঠতে পারছিলাম না। আমার স্ত্রীর চিৎকার শুনে গাড়ী দাঁড় করেন পুলিশ ভাইয়েরা। তাদের সহযোগিতায় আজ আমি ফুটফুটে পুত্র সন্তানের জনক হলাম। আমি চির কৃতজ্ঞ পুলিশ ভাইদের প্রতি।

পরদিন বিকালে হাসপাতালে গিয়ে মা ও নবজাতককে দেখে আসে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহমুদ উন নবীসহ থানা পুলিশের একটি টিম।

পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহমুদ উন নবী জানান, রাতে ডিউটি করা কালীন সময়ে হটাৎ নারী কন্ঠের চিৎকার শুনতে পাই। তাৎক্ষণিক ভাবে আমরা রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে সব ব্যবস্থা করি। এমন ভাল কাজ করতে পেরে আমরা আনন্দ বোধ করছি। বর্তমানে মা ও শিশু সুস্থ্য আছে আমরা সার্বক্ষণিক তাদের খোজ খবর নিচ্ছি। এই ভাল কাজের পেছনের কারিগর পুলিশ সুপার মোঃ মোখলেছুর রহমান।

মিজানুর ও তার স্ত্রী মিম আখতারের বাড়ী উপজেলার চওড়া বড়গাছা ইউনিয়নের চাকধাপাড়া গ্রামে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ