• সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:১৩ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে দলীয় পদ থেকে যুদ্ধাপরাধীর পুত্রকে বহিস্কার

সিসি নিউজ ।। নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী যুব লীগের আহবায়ক এবং পৌর আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক দিলনেওয়াজ খানকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। রবিবার (৫ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় সৈয়দপুর পৌর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলনে রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধী পুত্র দিলনেওয়াজ খানকে বহিস্কারের বিষয়টি জানানো হয়।

শহরের শহীদ তুলশীরাম সড়কে দলীয় কার্যালয়ে সৈয়দপুর আওয়ামী লীগ ওই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সৈয়দপুর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মোজাম্মেল হক।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, দিলনেওয়াজ খান একজন রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধীর সন্তান। তার বাবা নঈম খান একজন অবাঙ্গালী রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধী। বিগত ১৯৭৩ সালে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে একটি মামলায় সাজা হয়েছিল নঈম খানের। যার মামলা নং-৫১/৭৩ইং। দিলনেওয়াজ খানের কোন শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকলেও বিগত ২০০৪ সালে অত্যন্ত কৌশলে ও অর্থের বিনিময়ে সৈয়দপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতিটি বাগিয়ে নিয়েছিলেন। সে সময় থেকে তাঁর বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠে।

এরপর দিলনেওয়াজ খান একই কায়দায় সুকৌশলে উপজেলা আওয়ামী যুব লীগে অনুপ্রবেশ করেন। সম্মেলনে জানানো হয়, দলের নাম ও পরিচয় ভাঙ্গিয়ে স্থানীয়ভাবে ব্যাপক চাঁদাবাজি, রেল কোয়ার্টার ও সংখ্যালঘুর জমি-বাড়ি দখল, মহিলা লীগের নেত্রী ও স্কুল শিক্ষিকাকে লাঞ্চিত করা, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন ব্যক্তি ও ব্যবসায়ীকে ভয়ভীতি প্রদর্শণ, দলের ভাবমূর্তি নষ্ট ও নানা রকম অপকর্মের অভিযোগে তাকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়।

গত ২৬ আগস্ট সৈয়দপুর পৌর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভায় তাকে (দিলনেওয়াজ খান) বহিস্কারের সিদ্ধান্ত সর্বসম্মতিক্রমে গ্রহন করা হয়েছে। তার বহিস্কারের বিষয়টি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী এবং সাধারণ সম্পাদকসহ যুব লীগের সভাপতি ও সম্পাদক বরাবরে লিখিতভাবে অবগত করা হয়েছে।

সম্মেলনে উপস্থিত নেতারা জানান, শহরের শহীদ তুলশীরাম সড়কের এক হিন্দু মাড়োয়ারি বাড়ি অবৈধভাবে দখলে নিয়ে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করেন যুবলীগ নেতা দিলনেওয়াজ খান। এ ঘটনায় সংখ্যা লঘু হিন্দু মাড়োয়ারি পরিবারটি প্রধানমন্ত্রী কাছে অভিযোগে করলে বিগত ২০১৫ সালে যুব লীগ কেন্দ্রীয়ভাবে বহিস্কার করেছিল দিলনেওয়াজ খানকে।

পরবর্তীতে তিনি আবার আওয়ামী লীগ ও যুব লীগের কেন্দ্রীয় কয়েকজন নেতাকে ম্যানেজ করে যুবলীগের উপজেলার আহবায়কের পদটি দখলে নেয়। আর সেই থেকে তিনি চাঁদাবাজি, রেলওয়ে কোয়ার্টার ও জায়গা জমি দখল, মাদক কারবারসহ নানা রকম অপকর্মে লিপ্ত রয়েছেন। এতে করে এলাকায় আওয়ামী লীগ তথা এর সহযোগী অঙ্গসংগঠনের ও দলের জ্যেষ্ঠ নেতাকর্মীদের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুন্ন হচ্ছে।

তারা আরো জানান, আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন কোন রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধী কিংবা রাজাকার, যুদ্ধাপরাধীর সন্তান, জামায়াত-শিবির, দূর্ণীতিবাজ, ভূূমিদস্যূ, চাঁদাবাজ, জঙ্গীবাদ পরিবারের কেউই কোন দিন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গসংগঠনের সদস্য কিংবা পদ-পদবি দেওয়া হবে না। অথচ সৈয়দপুর পৌর আওয়ামী লীগ ও যুব লীগের পদ নিয়ে বসে নানা অপকর্ম করে সংগঠনের ভারমূতি ও সুনাম ক্ষুন্ন করছেন রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধী পুত্র দিলনেওয়াজ খান।

সংবাদ সম্মেলন বক্তারা অবিলম্বে আওয়ামী যুব লীগের কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে রাজাকার পুত্র দিলনেওয়াজ খানকে দল বহিস্কারের দাবি জানান। অন্যথায় সৈয়দপুর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগসহ এর সহযোগী অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে রাজাকার ও যুদ্ধাপরাধী দিলনেওয়াজ খানের বিরুদ্ধে স্থানীয়ভাবে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়েছে সংবাদ সম্মেলনে।

এতে অন্যান্যদের মধ্যে সৈয়দপুর উপজেলা আওয়াম লীগের সাধারণ সম্পাদক শহীদ পরিবারের সন্তান মহসিনুল হক মহসিন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) মো. রফিকুল ইসলাম বাবু, আওয়ামী লীগের অন্যতম নেতা অধ্যক্ষ সাখাওয়াৎ হোসেন খোকন ও মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী আঞ্জুমান আরা প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ