• সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১৫ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ মামলার অগ্রগতি নেই

সিসি নিউজ ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে চলন্ত ট্র্রেনে ছুড়ে মারা পাথরের ঘটনায় দায়ের করা মামলার কোন অগ্রগতি নেই। মামলার ২৫ দিন অতিবাহিত হলেও এ পর্যন্ত পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে কাউকে আটক করতে পারেনি।

অপরদিকে পাথরের আঘাতে আহত ৫ বছরের শিশু আজমির ইসলাম হাসপাতাল ছেড়ে বাসায় ফিরেছে। সে চোখ দিয়ে কাছের বস্তু দেখতে পেলেও আগামী ১/২ বছর পর দৃষ্টিহীণ হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে চিকিৎসক।

শিশু আজমিরের পরিবার জানায়, গত ১৫ আগষ্ট রোববার রাত সাড়ে ৭টায় নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলস্টেশনের হোম সিগনালের কাছে চলন্ত ট্রেনে দূর্বৃত্তদের ছোড়া পাথরে ডান চোখে আঘাত পায় শিশু আজমির। সে ডোমারের দাদা বাড়ি থেকে খুলনাগামী ‘সীমান্ত এক্সপ্রেস’ আন্তঃনগর ট্রেনে বাবার সাথে সৈয়দপুর শহরে নিজ বাসায় ফিরছিল। ট্রেনটি সৈয়দপুর স্টেশনে প্রবেশের সময় জানালার পাশে বসা আজমিরে ডান চোখে ছোঁড়া পাথরটি আঘাত করে। তার চোখ ফেটে রক্ত ঝরতে থাকে। এ অবস্থায় সৈয়দপুর স্টেশনে নেমে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নেয়া হয় আজমিরকে। সেখান থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা: রাশেদুল ইসলাম মাওলার শরণাপন্ন হলে তিনি উন্নতি চিকিৎসার জন্য ঢাকা পাঠিয়ে দেন।

পরের দিনই রাজধানীর ফার্মগেটের ইস্পাহানী ইসলামিয়া আই ইনস্টিটিউট এ্যান্ড হসপিটালে ভর্তি করান শিশু আজমিরকে। ওই হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ও সিনিয়র কলসানটেন্ট ডা. নাজমুন নাহারের তত্বাবধানে থেকে কর্নিয়া অপারেশন সম্পন্ন করেন।

সহকারী অধ্যাপক ও সিনিয়র কলসানটেন্ট ডা. নাজমুন নাহার জানান, কর্নিয়া অপারেশনের পর সে এখন কাছের বস্তু দেখতে পাচ্ছে। আগামী মাসে শিশু আজমিরে চোখের রেটিনা অপারেশন করা হবে। তিনি জানান, ডান চোখের ভেতরে কাঁচের টুকরো ঢুকে চোখের গুরুত্বপূর্ণ কিছু অংশ অকেজো হয়ে গেছে। যা রিকভার করা কঠিন। আগামী ১/২ বছর পর চোখের দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে যেতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

আজমিরের বাবা মারুফ হোসেন জানান, ইতিমধ্যে ৬০হাজার টাকা খরচ হয়ে গেছে। আগামীতে রেটিনা অপারেশনের কথা বলেছেন চিকিৎসক। কত টাকা ব্যয় হবে তা জানি না। ছেলের চিকিৎসার জন্য জমি বিক্রি করবো, তবু আমার ছেলের চোখ ভালো করতে চাই। তিনি জানান, বাংলাদেশ রেলওয়ে কিংবা সৈয়দপুর রেলওয়ে থানা কর্তৃপক্ষ একটি বারও ছেলের খোঁজ নেয়নি। আমি এ ঘটনায় আদালতের আশ্রয় নিবো।

তবে ঘটনার পরদিন সৈয়দপুর স্টেশন মাস্টার ময়নুল ইসলাম নিজে বাদী হয়ে অজ্ঞাত এক ব্যাক্তির নামে মামলা করেছেন সৈয়দপুর রেলওয়ে থানা। মামলার বাদী আজকের পত্রিকা জানান, সিনিয়র স্টেশন মাস্টার মামলার বাদী হতে বলেছে তাই হয়েছি। এরপর আমি আর কিছু জানি না।

সৈয়দপুর জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রহমান বিশ্বাস জানান, ওই ঘটনার পর থেকে স্টেশনের দুই পাশের আউট সিগন্যাল পর্যন্ত ট্রেন প্রবেশ ও ছেড়ে যাওয়ার সময় সাদা পোষাকে পুলিশ প্রহরা বসানো হয়েছে। মামলার বিষয়ে তদন্ত অব্যহত রয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের সৈয়দপুর জেলা পুলিশ সুপার সিদ্দিক তানজিলুর রহমান জানান, ওই ঘটনার ঘটনাস্থল থেকে ইতিমধ্যে সন্দেহভাজন কিছু লোককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছিল। তবে তাদের কাছ থেকে ইতিবাচক কোন কিছু পাওয়া না যাওয়ায় মুচলেকার নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ