• সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪০ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে তিন বিলুপ্ত প্রজাতি মাছের পোনা উৎপাদনে সফলতা

সিসি নিউজ ।। বিলুপ্ত প্রায় তিন প্রজাতির মাছের পোনা উৎপাদন কলাকৌশল উদ্ভাবিত হয়েছে। পুইয়া, লইট্যা ট্যাংরা ও কুর্শা নামের মাছের পোনা উৎপাদন করেছেন সৈয়দপুর স্বাদু পানি উপকেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের আওতাধীন।

সৈয়দপুর স্বাদু পানি উপকেন্দ্রের সূত্রমতে, উত্তরাঞ্চলের তিস্তা, চিকলী, বরাতি ও বুড়িখোড়া নদী থেকে বিলুপ্ত ওইসব প্রজাতির মা মাছ সংগ্রহ করা হয়। সেই মা মাছ থেকে বিশেষ কায়দায় ডিম ফুটিয়ে রেণু পোনা উৎপাদন করে উপকেন্দ্রের পুকুরে ছেড়ে বড় করা হয়।

স্বাদু পানি উপকেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাদের দেয়া তথ্যমতে, পুইয়া মাছটি এলাকা ভেদে নাটোয়া, খলই মুচরী, বিলভারি ইত্যাদি নামে পরিচিত। সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার পাহাড়ি ছোট নদীতে এবং দিনাজপুর, রংপুর ও ময়মনসিংহ জেলার ছোট নদীতে এ মাছটি পাওয়া যায়।

লইট্যা ট্যাংরা হচ্ছে স্বাদুপানির একটি সুস্বাদু মাছ। অঞ্চলভেদে এ মাছটি নদীর ট্যাংরা, গুইল্টা ট্যাংরা বা লইট্যা ট্যাংরা নামে পরিচিত। দেশের উত্তর পশ্চিম ও দক্ষিণ পূর্বের জেলাগুলোতে স্বাদুপানির নদী ও সংযুক্ত জলাশয়ে বিশেষ করে বর্ষা ও শীত মৌসুমে এদের পাওয়া যায়। ২০২০ সালে প্রজনন মৌসুমে দেশে প্রথমবারের মতো কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে লইট্যা মাছের পোনা উৎপাদনে প্রাথমিক সফলতা অর্জিত হয়। প্রযুক্তিটি প্রমিতকরণের মাধ্যমে চলতি প্রজনন মৌসুমে তা চূড়ান্ত করা হয়।

কুর্শা মিঠাপানির একটি মাছ, যা অঞ্চলভেদে কুর্শা, খুর্শা বা কাতাল খুশি ইত্যাদি নামে পরিচিত। দেশের উত্তর জনপদে মাছটি কুর্শা, খুর্শা নামে পরিচিত। মিঠাপানির জলাশয় বিশেষ করে পাহাড়ি ঝর্ণা ও অগভীর স্বচ্চ নদী এদের আবাসস্থল হিসেবে পরিচিত।

স্বাদুপানি উপকেন্দ্রে প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. খোন্দকার রশীদুল হাসান জানান, বিলুপ্ত প্রায় মাছের তালিকায় রয়েছে ৬৪ প্রজাতির মাছ। এর মধ্যে গবেষণায় ৩৪টি জাত ফিরে এসেছে। এ কেন্দ্র থেকে তিনটিসহ মোট নয়টি বিলুপ্ত প্রায় প্রজাতির মাছের প্রজনন কৌশল উদ্ভাবন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, নির্বিচারে মাছ নিধন, বিশেষ করে নদীতে বানা ও কারেন্ট জাল দিয়ে বা জলাশয়ের পানি শুকিয়ে মাছ ধরা, কীটনাশক ব্যবহার ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে দেশি মাছগুলো হারিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু গবেষণায় মাছের সুদিন ফিরে আসছে। দেশের মৎস্য খাতে যথেষ্ট অবদান রাখবে এসব মাছ।

স্বাদু পানি উপকেন্দ্রের গবেষণা প্রসঙ্গে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য রাবেয়া আলীম বলেন, মাছের বিলুপ্ত প্রায় প্রজাতিগুলো আবার ফিরে পাওয়া মূলত এক ঝাঁক বিজ্ঞানীর গবেষণার ফসল। তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি উপকেন্দ্রটি পূর্ণাঙ্গ স্টেশন করার দাবি জানান।

উল্লেখ্য যে, স্বাদু পানি উপকেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. খোন্দকার রশীদুল হাসানের নেতৃত্বে ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ইশতিয়াক হায়দার, শওকত আহমেদ ও মালিহা হোসেন মৌ গবেষণা করে এসব মাছের পোনা উৎপাদনে সফলতা পেয়েছেন।

এর আগে প্রতিষ্ঠানটি বালাচাটা, খলিশা, গুতম, ট্যাংরা, বৈরালী ও আঙ্গুস মাছের পোনা উৎপাদনের কলাকৌশল উদ্ভাবনে সফলতা পায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ