• শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০৬ পূর্বাহ্ন |

কিশোরগঞ্জে আগাম আমন ধান কাটা শুরু

সিসি নিউজ ।। আগাম জাতের রোপা আমন ধান কাটা শুরু করেছে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার চাষীরা। তবে আগামী সপ্তাহে আনুষ্ঠানিক ভাবে এ ধান কাটা শুরু করার কথা জানান স্থানীয় কৃষি বিভাগ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভাদ্র মাসের এই সময়ে এ অঞ্চলের কৃষি শ্রমিকরা কর্মহীণ হয়ে অলস সময় পার করে। আগাম জাতের আমন ধানের চাষাবাদ হওয়ায় চাষীদের সাথে তাদের মুখেও ফোটে হাসি। এছাড়াও চাষীরা আগাম জাতের ধানের ভালো দাম পাওয়ায় প্রতি বছর বাড়ছে এর চাষাবাদ।

কিশোরগঞ্জ উপজেলা কৃষি বিভাগের মতে, এবারে ১৪ হাজার ৮৮০ হেক্টর জমিতে হাইব্রীড ও উফশী জাতের রোপা আমন ধানের চাষ হয়েছে। যা গত বছরের চেয়ে ৫ হেক্টর বেশি জমিতে চাষাবাদ হয়েছে। হাইব্রীড জাতের রোপা আমন ১০৮ থেকে ১১০ দিন এবং উফশী জাতের রোপা আমন ১১৫ থেকে ১২০ দিনের মধ্যে ঘরে তুলতে পারে চাষীরা। জমি চাষ, মজুরী, সেচ, বালাইনাশক, কর্তন ও মাড়াই বাবদ হাইব্রীডে প্রতি বিঘায় ৭ হাজার ৭০০ টাকা ও উফশীতে ৭ হাজার ২৫০ টাকা ব্যয় হয়। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবারে বাম্পার ফলন হয়েছে। বিঘা প্রতি ১৪ থেকে ১৫ মন ধান পাবে চাষীরা এমনটি আশা করছে কৃষি বিভাগ। এ ছাড়া বাজারে ধান ও গোখাদ্য হিসেবে খড়ের দাম ভালো থাকায় চাষীরা বিঘা প্রতি ১৩ থেকে ১৪ হাজার টাকায় বিক্রি করতে পারবে।

কৃষি বিভাগের ওই সূত্রটি জানায়, চার ফসলী এসব জমির আগাম জাতের ধান কাটা শেষে এ অঞ্চলের কৃষকরা আগাম আলু চাষে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। রবি মৌসুমে দুইবার আলু চাষ হয় এসব জমিতে। একটি আগাম আলু ও অপরটি বীজ আলু। এরপরই আবাদ হয় খরিপ-১ মৌসুমে ভুট্টা।

উপজেলার পুটিমারীর কৃষক অমল চন্দ্র জানান, আবহাওয়া ভালো থাকায় ধানের ক্ষেতে তেমন একটা কীটনাশক প্রয়োগ করতে হয়নি এবার। ধানের ফলন ভালো হয়েছে। আগামী ৫/৬ দিনের মধ্যে ধান কাটাই-মাড়াই পুরোদমে শুরু হবে। এরপর আলু চাষের জন্য দ্রুত জমি প্রস্তুত করবো। কারণ এবারে বৃষ্টিপাত তেমন না হওয়ায় জমি শুকনো রয়েছে, যা আলু বপনে কোন সমস্যা হবে না।

চন্ডিপুর গ্রামের কৃষক খোকন রায় রায় জানান, ধান কাটতে শ্রমিকের সংকট হয় না। কারণ এ সময়ে কাজ না থাকায় তারা কাজের সন্ধানে ছুটে যায় দেশের দক্ষিনাঞ্চলের জেলাগুলোতে। আগাম জাতের আমন ও আলু চাষাবাদের ফলে তারা সেসব অঞ্চলে আর যায় না।

কিশোরগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা তুষার কান্তি রায় জানান, বর্তমান বাজারে ধানের দামের সাথে উচ্চ মূল্যে বিক্রি হচ্ছে খড়। প্রতি বিঘায় খড় বিক্রি হচ্ছে ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকায়। ফলে আগাম জাতের রোপা আমন চাষে লাভবান হওয়ায় চাষীরা দিন দিন আগ্রহী হয়ে উঠছে।

কিশোরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: হাবিবুর রহমান জানান, আগাম ধান ও তার পরপরই আলু চাষ শুরু হওয়ায় শ্রমিক বেকার থাকে না। আর বিশেষ করে উচ্চ ফলনশীল আগাম জাতের ধান চাষে কৃষকরা লাভবান হয়। সেজন্যে কৃষকদের আগ্রহ বেড়ে চলেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ