• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১৯ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে নষ্ট হচ্ছে ১৫ লাখ টাকার কৃষি সরঞ্জাম

বিশেষ প্রতিনিধি।। কৃষি বিষয়ে আগাম তথ্য দিতে নীলফামারীর সৈয়দপুরে ইউনিয়ন পর্যায়ে আবহাওয়া তথ্য বাতায়ন বোর্ড (কৃষি তথ্য বোর্ড) বসানো হয়েছে। এজন্য প্রতিটি ইউনিয়ন কৃষি অফিসে ট্যাবসহ আনুষঙ্গিক বিভিন্ন যন্ত্রপাতি দেওয়া হয়েছে। একজন করে লোক নিয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু দুই বছরেও চালু হয়নি বোর্ডটি।

প্রান্তিক কৃষকদের অভিযোগ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে ফসল রক্ষায় এ বোর্ড কোনো কাজে আসছে না। ফসলহানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তাঁরা।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাহিনা বেগম বলেন, অনেক আগে ইউনিয়ন পর্যায়ে কৃষি তথ্য সেবাকেন্দ্র স্থাপনের কাজ শেষ হয়েছে। প্রত্যেক দিন কৃষকদের কৃষি আবহাওয়ার তথ্য দিতে ইউপি কার্যালয়ের বাইরে বিশাল বোর্ড বসানো হয়েছে। এ বোর্ডের দায়িত্বে রয়েছে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা। তাঁরা প্রশিক্ষণ না পাওয়ায় প্রকল্পটির কাজ চালু করা যাচ্ছে না। করোনা পরিস্থিতিতে প্রশিক্ষণ কার্যক্রমে আরও দেরি হবে বলে মনে হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে কৃষি আবহাওয়া তথ্য পদ্ধতি উন্নতিকরণ প্রকল্প চালু করে সরকার। এরই অংশ হিসেবে এ উপজেলায় ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় চত্বরে প্রায় ১৫ লাখ টাকা (প্রতিটিতে প্রায় ৩ লাখ টাকা) ব্যয়ে বসানো হয় কৃষি আবহাওয়া তথ্য বোর্ড। এর জন্য দেওয়া হয় ট্যাব, রেইনগজ, ডিসপ্লেবোর্ড কিউসেকসহ নানা ধরনের সরঞ্জাম। এ তথ্য বোর্ডের মাধ্যমে চাষিদের প্রতিদিনের যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগের বিষয়ে আগাম তথ্য সেবা দেওয়ার কথা। আবহাওয়া কবে কেমন থাকবে এবং চলতি ফসলের জন্য তা কতটুকু উপকারী ইত্যাদি বিষয় কৃষকরা এ তথ্য বোর্ডের মাধ্যমে জানতে পারবেন। আগাম তথ্যের ভিত্তিতে তাঁরা ফসল রক্ষায় প্রস্তুতি নিতে পারবেন।

সরেজমিনে খাতামধুপুর ইউনিয়নে গিয়ে কার্যালয়ের সামনে আবহাওয়া তথ্য বোর্ড ও কেন্দ্র স্থাপন দেখা যায়। তবে বোর্ডে নেই কোনো হালনাগাদ তথ্য। দীর্ঘদিন পড়ে থেকে নষ্ট হতে বসেছে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি। ট্যাবসহ একজনকে নিয়োগ দেওয়া হলেও সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি। একই দশা অন্য ৪টি ইউনিয়ন পরিষদের। দীর্ঘ দুই বছরেও এ তথ্য বোর্ড চালু না হওয়ায় হতাশা ব্যক্ত করেছেন চাষিরা।

বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের কিশামত কাদিখোল গ্রামের কৃষক রেজাউল হক বলেন, ‘খরা ও অতিবৃষ্টিতে প্রতিবার ফসলের ক্ষতি হয়। মাঠে ফসল রেখে আমরা ঘুমাতে পারি না। আগাম কৃষি তথ্য পাওয়ার খবরে খুশি হয়েছিলাম। কিন্তু দীর্ঘদিনেও এটি চালু হয়নি। দুর্যোগে ফসলের ক্ষতি হলেও কৃষি বিভাগের কর্মীরা খোঁজ পর্যন্ত নেন না। ’

খাতামধুপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী বলেন, সরকারের এত ভালো উদ্যোগ কিছু কর্মকর্তার উদাসীনতায় নষ্ট হতে বসেছে। দুই বছর আগে তথ্য সেবা বোর্ড বসালেও তথ্য দূরে থাক, যাকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে তারও দেখা মেলে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ