• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৩০ অপরাহ্ন |

নিভে গেল আজমীরের চোখের আলো

।। সিসি নিউজ ।। ট্রেনে দূর্বত্তদের ছোড়া পাথরের আঘাতে আহত শিশু আজমীরের চোখের আলো নিভে গেছে। সোমবার ফলোআপ চিকিৎসা করাতে গিয়ে চিকিৎসকরা এমনটি জানিয়েছে। আজমীরের চোখ অকালেই অন্ধ হয়ে গেছে, তা মেনে নিতে পারছে না তাঁর স্বজনরা। অপরদিকে রেলওয়ে থানায় দায়েরকৃত মামলার কোন অগ্রগতি নেই বলে অভিযোগ আজমীরের পরিবারের।

শিশুটির পরিবার জানান, নীলফামারীর ডোমার উপজেলার আমবাড়ি গ্রামের নিজস্ব মাছের হ্যাচারি ব্যবসায়ী মারুফ ইসলামের ছোট ছেলে আজমীর। চলতি বছরের কোরবানীর ঈদে ডোমরের গ্রামের বাড়িতে স্ত্রী সন্তানসহ ঈদ উদযাপন করেন তিনি। ১৫ আগস্ট সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় খুলনাগামী সীমান্ত এক্সপ্রেস ট্রেনে ডোমার থেকে সৈয়দপুর ফিরছিলেন। স্টেশনে পৌঁছাতে আর মাত্র কয়েক মিনিট বাকি ছিল। ট্রেনে জানালার পাশে বসে ছিল আজমির। সৈয়দপুর রেলস্টেশনের হোম সিগন্যালের কাছে হঠাৎ বাইরে থেকে আসা পাথর তার ডান চোখে আঘাত করে। ছেলের চোখ ফেটে রক্ত ঝরতে থাকে।

এ অবস্থায় সৈয়দপুর স্টেশনে নেমে রেলওয়ে পুলিশের এএসআই প্রভাষ কুমারের সহায়তায় দ্রুত সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্মকর্তা ডা. মো. রবিউল ইসলাম দ্রুত শিশুটিকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। ওই হাসপাতালের চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা. রাশেদুল ইসলাম মাওলার শরণাপন্ন হলে তিনি উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠিয়ে দেন। পরের দিন ১৬ আগষ্ট রাজধানীর ফার্মগেটের ইসলামিয়া চক্ষু হাসপাতালে ভর্তি করা হয় আজমীরকে। সেখানে ১৭ আগষ্ট আজমীরের চোখের (কর্নিয়া) অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল। এরপরেও ছেলের দৃষ্টিশক্তি আস্তে আস্তে কমতে থাকে।

ঢাকায় অবস্থানরত আজমীরের বাবা মারুফ ইসলাম মুঠোফোনে জানান, শনিবার (১৬ অক্টোবর) রাজধানীর ইসলামীয়া চক্ষু হাসপাতালে ফলোআপ চিকিৎসার জন্য আজমীরকে নেয়া হয়। সেখানে চক্ষু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ ছেলের চোখের আলট্রাসনোগ্রামসহ বিভিন্ন পরীক্ষা করান। পরীক্ষা-নিরিক্ষা শেষে চিকিৎসকেরা ঘোষণা দিলেন, তা শোনার জন্য একেবারেই প্রস্তুত ছিলেন না তিনি। ঘটনার পর ছেলেকে নিয়ে কত সংবাদ প্রচার হলো, অথচ রেলের কেউ আমার বাড়িতে গিয়ে একবার খোঁজও নিল না, আমার ছেলের চোখটা কেমন আছে।

তিনি আরও জানান, আজমীরের কর্নিয়া অপারেশনসহ এ পর্যন্ত খরচ হয়েছে এক লাখ টাকার বেশি। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, ছেলেকে দেশের বাইরে নিয়ে চিকিৎসা করাতে চাইলে করাতে পারেন, তবে এতে চোখ ভালো হয়ে যাবে সে ধরনের নিশ্চয়তা দিচ্ছেন না তারা। তারপরেও বাবা হিসাবে দেশের বাইরে নিয়ে ছেলের চোখ পরীক্ষা করানোর চেষ্টা করবো মনের সান্তনার জন্য।

এদিকে ঘটনার পরদিন ১৬ আগস্ট সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার ময়নুল হোসেন বাদী হয়ে সৈয়দপুর রেলওয়ে থানায় (মামলা নম্বর ১) ১৮৬০ সালের পেনাল কোডের ৪২৭ ও ১৮৯০ সালের রেলওয়ে আইনের ১২৭ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। পাথর নিক্ষেপে করে যাত্রীকে গুরুতর জখম এবং ট্রেনের জানালার গ্লাসের ক্ষতির বিষয়টি উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আসামী করে মামরাটি রুজু করা হয়। ওই মামলায় ট্রেনের বগির একটি জানালার গ্লাসের ক্ষতির পরিমাণ উল্লেখ করা হয়েছে আনুমানিক পাঁচ হাজার টাকা।

সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার বারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রহমান বিশ্বাস জানান, আমরা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বেশ কিছু তরুন-যুবককে আটক করেছিলাম। তারা ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিলনা বলে তদন্তে বেরিয়ে আসায় তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। তবে মুল হোতাদের গ্রেফতারে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। অপরদিকে ট্রেনে পাথর ছোড়া বন্ধে সচেতনতামূলক কর্মসূচী পালন করা হচ্ছে।

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, রেলওয়েতে গত জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে ১১০টি। এতে ট্রেনের জানালার কাচ ভেঙেছে ১০৩টি এবং আহত হয়েছেন ২৯ জন। ১৮৯০ সালের রেলওয়ে আইনের ১২৭ ধারায় শাস্তির বিধান আছে। চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের জন্য ১০ হাজার টাকা জরিমানার পাশাপাশি ১০ বছর থেকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের কথা বলা আছে। আর কোনো রেলযাত্রী মারা গেলে ৩০২ ধারায় ফাঁসিরও বিধান আছে। পাথর নিক্ষেপকারী অপ্রাপ্তবয়স্ক হলে, সে ক্ষেত্রে তার অভিভাবকের শাস্তির বিধান আছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ