• বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:০২ অপরাহ্ন |

লাল সাইনবোর্ডে ‘মাদক ব্যবসায়ীর বাড়ি’

সিসি নিউজ ডেস্ক ।। সীমান্ত এলাকার বিভিন্ন বাড়ির সামনে ‘চোরাকারবারির বাড়ি’ ও ‘মাদক ব্যবসায়ীর বাড়ি’ লেখা লাল সাইনবোর্ড লাগিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে তোলপাড়। সচেতন মহল ও মানবাধিকার কর্মীরা একে মানবাধিকার ও আইনের লঙ্ঘন বলে মনে করছেন। তবে এমন উদ্যোগের ফলে মাদক ও চোরাচালান ব্যবসা কমে আসবে বলে মনে করছে বিজিবি।

সীমান্ত এলাকায় গিয়ে এমন সাইনবোর্ড দেখা যায়। সাইনবোর্ডে লাল রঙের প্রেক্ষাপটে সাদা অক্ষরগুলো দূর থেকে পথচারীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। জেলার চুনারুঘাট ও মাধবপুর উপজেলার সীমান্ত এলাকার দেড়শতাধিক বাড়ির সামনে এমন সাইনবোর্ড আছে। সম্প্রতি এমন কিছু ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে শুরু হয় সমালোচনা। অনেকেই লিখেছেন, বিজিবি দায়িত্বহীনতার পরিচয় দিচ্ছে।

মাধবপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী মোহনপুর গ্রামের আলা উদ্দিন মিয়ার স্ত্রী আসমা আক্তার জানান, তার স্বামীকে চক্রান্তমূলকভাবে মাদক মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। তিনি এখন জেলে। তাদের বাড়ির সামনে লাল সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে। বাড়ির শিশুরা বাইরে ও স্কুলে যেতে পারছে না। গ্রামের লোকজন তাদের নানা কথা বলছে।

মাধবপুরের কৃষ্ণপুর গ্রামের বলু মিয়া মাদকদ্রব্য-সংক্রান্ত এক মামলায় কারাগারে আছে। তার বাড়িতে গিয়ে দ্বিতীয় শ্রেণি পড়ূয়া শিশুকন্যা মারুফার সঙ্গে কথা হয়। সে বলে, বাড়িতে সাইনবোর্ড দেওয়ার কারণে এখন সহপাঠীরা তাকে মাদক ব্যবসায়ীর মেয়ে বলে মন্তব্য করে। বলু মিয়ার প্রতিবেশী বাবুল মিয়া বলেন, হতদরিদ্র বলু মিয়াকে গাঁজা দিয়ে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হয়েছে।

মাধবপুরের রাজেন্দ্রপুর গ্রামের আহাদ মিয়ার বাড়িতে ‘মাদক ব্যবসায়ীর বাড়ি’ সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে। তার স্ত্রী নাজমা বেগম জানান, শ্রীধরপুর গ্রামের ফারুক মিয়া, কবির মিয়া প্রায়ই তাদের ঘরে ইয়াবা সেবন করতে আসত। তার কলেজপড়ূয়া বড় ছেলে ইমন এতে বাধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আহাদ মিয়াকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়ে জেলে পাঠিয়েছে তারা। এখন সাইনবোর্ডের কারণে অপবাদ সইতে হচ্ছে।

কমলপুর গ্রামের বশির মিয়ার স্ত্রী আলফিনা আক্তার জানান, তার দেবব জানু মিয়ার নিজস্ব বাড়ি নেই। জানু তাদের বাড়িতে বসবাস করে। তার বিরুদ্ধে মাদক মামলা হয়েছে। তিনি মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত কিনা, তারা কেউ জানেন না। তাদের বাড়ির সামনেও লাল সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে। এতে তারা সামাজিকভাবে হেয় হচ্ছেন। তিনি জানান, জানু মিয়া মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

একই গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আবুল হোসেন জানান, এ গ্রামে অনেক গুণিজনও বসবাস করেন। গ্রামের প্রবেশমুখে লাল সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে। এতে একজনের জন্য পুরো গ্রামের মানুষ অপমানিত বোধ করছেন।

ভ্যানচালক আব্দুল খালেক জানান, হঠাৎ তার বিরুদ্ধে একটি মাদক মামলা করা হয়। তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না। তার বাড়ির সামনেও লাল সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে।

সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের হবিগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি ও হবিগঞ্জ জেলা বারের সিনিয়র আইনজীবী ত্রিলোক কান্তি চৌধুরী বিজন বলেন, একজনের অপরাধের শাস্তি পুরো পরিবারকে দেওয়া যাবে না। এ অপমান ওই পরিবারের প্রতিটি সদস্যকে সারাজীবন বয়ে বেড়াতে হবে। তিনি আরও বলেন, এভাবে সাইনবোর্ড লাগানো আইনের লঙ্ঘন।

তবে বিজিবি-৫৫ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক এসএনএম সামীউন্নবী চৌধুরী বলেছেন, মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা থেকে হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট ও মাধবপুর উপজেলার সীমান্ত এলাকায় চোরাকারবারিদের দৌরাত্ম্য চরম আকার ধারণ করছে। কোনোভাবেই তাদের দমানো যাচ্ছে না। কয়েকটি চক্র ভিন্ন ভিন্ন কৌশলে সীমান্তে অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে আসছে। বিভিন্ন সময় তাদের আটক করে মামলা দিলেও কারাগার থেকে বেরিয়ে তারা আবার এ ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছে। তাই সামাজিক চাপের মুখে থাকলে অপরাধ ছেড়ে দিতে পারে- এ চিন্তা থেকেই সাইনবোর্ডগুলো লাগানো হয়েছে। আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বা তারা এ ব্যবসা থেকে সরে এলে সাইনবোর্ড তুলে নেওয়া হবে।

সমালোচনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যাদের বিরুদ্ধে বিজিবির মামলা রয়েছে, তাদের বাড়িতেই মূলত সাইনবোর্ডগুলো লাগানো হয়েছে। এসব সমালোচনায় আমি কান দিই না।’ একজনের জন্য পুরো পরিবার কেন চিহ্নিত হবে? এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পরিবারের ওই সদস্য কেন মাদক বা চোরাচাকারবারের সঙ্গে জড়িত? এর দায় পুরো পরিবারের ওপরই পড়ে।

উৎস: সমকাল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ