• বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:২৩ অপরাহ্ন |

নির্বাচনী পোস্টারে এমপি’র ছবি

সিসি নিউজ ।। নির্বাচন কমিশনের বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনা চলছে। পোস্টারে স্থানীয় সংসদ সদস্যের ছবি ব্যবহার করে নির্বাচনী প্রচারনা করায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা সুষ্ঠ নির্বাচন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে।

অপরদিকে বড়ভিটা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে পিতাসহ তিনপুত্র প্রার্থী হওয়ায় ভোট কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তারের আশঙ্কা প্রকাশ করছে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। পিতার প্রতিক লাঙ্গলের পক্ষে তিনপুত্রই এখন কর্মী হিসেবে কাজ করায় এমন অভিযোগ অন্য প্রার্থীদের।

সরেজমিনে কিশোরগঞ্জ ইউনিয়নে গিয়ে দেখা যায়, এ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী মো. হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দি পোস্টারে শোভা পাচ্ছে দলীয় প্রধানের পাশাপাশি স্থানীয় সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় নেতার ছবি। নির্বাচন কমিশনের পরিপত্র-৪ অনুযায়ী প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রাজনৈতিক দলের মনোনীত হলে সেই ক্ষেত্রে তিনি কেবল তাহার দলের বর্তমান দলীয় প্রধানের ছবি পোস্টার বা লিফলেটে ব্যবহার করতে পারবেন। কিন্তু ওই প্রার্থী তাহার পোস্টারে দলের প্রয়াত চেয়ারম্যান হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ, বর্তমান চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমানের ছবি ব্যবহার করেছেন।

একই কায়দায় বড়ভিটা ইউনিয়নে জাপার মনোনীত প্রার্থী ফজলার রহমান দলীয় সাংসদের ছবি ব্যবহার করেছেন নির্বাচনী পোস্টারে। ওই প্রার্থীর তিনপুত্র আবু সাঈদ আখতারুজ্জামান ঘোড়া প্রতিক, আবু হেনা মোস্তফা জামান আনারস প্রতিক ও আবু সাজ্জাদ মোস্তফা জামান দোয়াত-কলম প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে নামমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন। তারা নিজের কোন পোস্টার বা নির্বাচনী প্রচারনার মাইকিং নেই। পিতার লাঙ্গল প্রতিকের কর্মী হিসেবে মাঠে কাজ করছেন। এভাবে গ্রামের ও নিকটাত্মীয় আরো ৪ জনের মনোনয়ন পত্র দাখিল করে চেয়ারম্যান হিসেবে নামমাত্র প্রার্থী দিয়ে লাঙ্গল প্রতিকের পক্ষে কাজ করছেন।

এ প্রসঙ্গে অটোরিক্সা প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ও যুবলীগ নেতা জগলুল হায়দার জানান, পোস্টারে স্থানীয় সংসদ সদস্যের ছবি ব্যবহার করে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘণ করেছে। এছাড়া তিনপুত্র ও চার নিকটাত্মীয়ের প্রার্থীতা নিয়ে ইউনিয়নবাসীর মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। ভোট কেন্দ্রে প্রার্থী হিসেবে এজেন্ট নিয়োগের মাধ্যমে তাদের সমর্থনের এজেন্ট সংখ্যা বাড়ানোই মূল উদ্দেশ্য। এতে কেন্দ্র দখল বা গোলযোগ সৃষ্টি করার সম্ভাবনা রয়েছে। যেখানে প্রার্থী হিসেবে কোন প্রচারনা নেই সেখানে ভোট কেন্দ্রে ওইসব প্রার্থীর এজেন্ট রাখার যুক্তি নেই। তিনি বিষয়টি রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাচনে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

বড়ভিটা বাজারের রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ী আবুল হোসেন জানান, শুনেছি এ ইউনিয়নে ১৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন। কিন্তু আমরা ৫ জন প্রার্থীর পোস্টার, মাইকিং ও কর্মী দেখতে পাচ্ছি। বাকীগুলো লাঙ্গল প্রতিকের প্রার্থীর পুত্র, ভাতিজা, জামাতা ও প্রতিবেশি। তারা ভোট কেন্দ্রের বুথে প্রার্থী হিসেবে নিজের দুইজন করে এজেন্ট দিয়ে কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করবে বলে লোকজন মুখে মুখে রটেছে।

মুঠোফোনে কথা হয় জাপা প্রার্থীর তিনপুত্রের মধ্যে চেয়ারম্যান পদ-প্রার্থী আবু সাজ্জাদ মোস্তফা জামানের সাথে। তিনি জানান, বর্তমান যুগে প্রচারনায় মাইকিং বা পোস্টার লাগে না। প্রযুক্তির যুগে মোবাইলে সবকিছু প্রচার করা যায়। বাবার হয়ে কাজ করছেন কিনা? উত্তরে তিনি জানান, তাই বলতে পারেন।

সংসদ সদস্যের ছবি পোস্টারে ব্যবহার করার প্রসঙ্গে জাপা মনোনীত প্রার্থী মো. হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দি জানান, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। তাই নতুন পোস্টার দিয়ে ওইসব পোস্টার ঢেকে দেয়া হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম জানান, পোস্টারে দলীয় নেতা ও সংসদ সদস্যের ছবি ব্যবহারের বিষয়টি উর্ধতণ কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে। এছাড়া বড়ভিটা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে একই পরিবারের চার প্রার্থীর কারণে ভোট কেন্দ্রগুলোতে বিশেষ নজরদারির মধ্যে রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ