• মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৪২ অপরাহ্ন |

কাল নীলফামারী পৌরসভাসহ ১৯ ইউপিতে ভোট

সিসি নিউজ ।। নীলফামারী পৌরসভা, কিশোরগঞ্জের ৮টি এবং জলঢাকা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডসহ ১১টি ইউনিয়ন পরিষদের ভোট অনুষ্ঠিত হবে কাল রোববার। এদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত টানা ভোটগ্রহণ চলবে। শুক্রবার নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শেষ হয়েছে। ভোট ঘিরে কড়া নিরাপত্তাসহ সার্বিক প্রস্তুতি নিশ্চিত করেছে জেলা নির্বাচন অফিস।

এদিকে নির্বাচনী প্রচারনার শেষ দিন প্রার্থীরা সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত শেষবারের মতো প্রচারনা চালিয়েছেন গ্রাম-মহল্লায়। বিকেলে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা পায়ে হেঁটে, কেউ মোটরসাইকেলে আবারো কেউ অটোরিক্সায় অথবা রিক্সা ভ্যানে শো-ডাউন করেছে।

জেলা ও সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্র মতে, কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী শুক্রবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে সব প্রার্থীদের প্রচারণা শেষ হয়েছে। ফলে এ সময়ের পরে কোনো প্রার্থী প্রচারণা চালাতে পারবে না। যদি কেউ প্রচারণা চালায় তাহলে আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ব্যবস্থা নেবেন।

সংশ্লিষ্টরা আরো জানান, নির্বাচনী এলাকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ইতিমধ্যেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা মাঠে নেমেছেন। তারা নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান করছেন। নির্বাচনী এলাকায় কোনো সাধারণ ছুটি থাকছে না। তবে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সাধারণ ছুটির আওতায় থাকবেন। এ ছাড়া ভোট দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান থেকে ছুটি নিতে পারবেন ভোটাররা।

নীলফামারী জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, আগামীকাল ২৮ তারিখে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। আজ শনিবার ইউনিয়ন পর্যায়ের ভোট কেন্দ্রগুলোতে সকল সরঞ্জাম পাঠানো হবে। শুধু ভোটের দিন সকালে কেন্দ্রগুলোতে ব্যালট পেপার পৌছে দেয়া হবে।

তিনি জানান, ভোটকেন্দ্র ছাড়াও নির্বাচনী এলাকায় দায়িত্ব পালন করবে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবির মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স। এক্ষেত্রে পৌরসভায় বিজিবির ৩ প্লাটুন ও র‌্যাবের ৫টি টিম এবং প্রতি উপজেলায় বিজিবি ২ প্লাটুন ও র‌্যাবের ৩টি টিম মোতায়েন থাকবে। এছাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবলোকনের জন্য মনিটরিং সেল স্থাপন করা হয়েছে। যা নির্বাচনের পরেও দুদিন চালু থাকবে।

উল্লেখ্য যে, কাল পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডের ১৬টি কেন্দ্রে ইভিএমের মাধ্যমে নেয়া হবে ভোট। নির্বাচনে মেয়র পদে ৩ জন, সাধারন সদস্য পদে ৬০ জন ও সংরক্ষিত আসনে ২২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এখানে মোট ৩৫ হাজার ৯৮১ জন ভোটারের মধ্যে নারী ১৮ হাজার ৫৬৫ ও পুরুষ ১৭ হাজার ৪১৬ জন রয়েছে। অবাধ, সুষ্ঠ নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ