• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩১ পূর্বাহ্ন |

ডিমলায় বিনামূল্যের বীজে সর্বশান্ত কৃষক

সিসি নিউজ ।। বাংলাদেশ সরকারের এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর নিবন্ধিত গ্রাম বিকাশ কেন্দ্র থেকে বিনামূল্যে পাওয়া ধানের বীজ জমিতে রোপণ করে বিপাকে পড়েছেন নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ৬১ জন কৃষক। প্রতি শতকে ধান উৎপন্ন হয়েছে মাত্র এক থেকে আড়াই কেজি ধান। ফলনে এমন বিপর্যয়ে দিশেহারা চরাঞ্চলের হতদরিদ্র ওইসব কৃষকরা।

সূত্র মতে, অর্থ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের (পিকেএসএফ) অধীনে নীলফামারীর ডিমলায় “সম্প্রসারিত সম্প্রদায় জলবায়ু পরিবর্তন প্রকল্প- বন্যা” প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে দিনাজপুরে এনজিও গ্রাম বিকাশ কেন্দ্র। চলতি আমন মৌসুমে উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি চরাঞ্চলের ৬১ জন দরিদ্র কৃষকের মাঝে হাইব্রীড ব্রি-৫২ জাতের ধানের বীজ ও প্রয়োজনীয় সার বিনামূল্যে বিতরণ করে প্রতিষ্ঠানটি।

কৃষকদের অভিযোগ গ্রাম বিকাশের কর্তৃপক্ষের খামখেয়ালিপনায় নিম্নমানের বীজের কারণে প্রতি শতকে ফলন হয়েছে মাত্র এক থেকে আড়াই কেজি ধান। এ অবস্থায় পরিবারের চাহিদা অনুযায়ী ধান দূরে থাক, উল্টো উৎপাদন খরচ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন কৃষকেরা।

একতার বাজার এলাকার চর খড়িবাড়ীর কৃষক নুর ইসলাম জানান, ৪৫ শতক জমির জন্য তিনি ৫ কেজি ধানের বীজ পেয়েছেন। এর সাথে বিনামূল্যে পাঁচ ধরনের ৬২ কেজি সার দেয়া হয়েছে তাকে। ডিমলা উপজেলা কৃষি অফিসের একজন কর্মকর্তা কর্তৃক একদিনের প্রশিক্ষনও পেয়েছি। তাদের দেয়া নির্দেশনায় বীজ বপন-রোপন, সার, কীটনাশক দেয়া হলেও ধানের উৎপাদন একেবারে নেই। ৪৫ শতক জমিতে ধান উৎপন্ন হয়েছে ১০০ কেজি ধান। তিনি জানান, বিনামূল্যে সার ও বীজ পেলেও আমার কীটনাশক ও কামেলা বাবদ খরচ হয়েছে প্রায় ৭ হাজার টাকা। আর উৎপাদিত ধান কালো রং ধারন করায় খরিদদাররা কিনতে নারাজ।

পূর্ব খড়িবাড়ি গ্রামের রাবেয়া বেগম জানান, গ্রাম বিকাশ থেকে বিনামূল্যে দেওয়া হাইব্রিড ব্রি-৫২ জাতের ধানের বীজ ২৭ শতক জমিতে চাষ করেছিলো আমার স্বামী কিন্তু, ধানের ফলন হয়েছে ৩০ কেজি। ৫ হাজার টাকা ধারদেনা করে চাষাবাদ করেছি। এখনও এক হাজার টাকা সারের দোকানে বাকি আছে। এখন আমরা খাব কি আর ধারদেনা ও দোকানের বাকি পরিশোধ করবো কিভাবে? আমাদের এসব ফসলি জমি, তাছাড়া জমি নির্বাচনও করেছিলো গ্রাম বিকাশের অফিসারগণ।

একই এলাকার আব্দুল আজিজ জানান, গ্রাম বিকাশ কেন্দ্র থেকে বলেছিলো প্রতি বিঘায় ২৫ থেকে ৩০ মণ ধান হবে। তাদের প্রলোভনে বীজ রোপণ করেছি, ধান হয়েছে বিঘায় ১০ থেকে ১৫ কেজি। অথচ গতবার এই জমিতে ধান হয়ছিলো ১৮ মণ। তিনি জানান, গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রে দেওয়া বীজে রোগবালাই বেশি। বিভিন্ন ধরণের কীটনাশক প্রয়োগ করেও কোনো লাভ হয়নি। এ বিষয়ে গ্রাম বিকাশের লোকজনকে বারবার জানালেও তাঁরা কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। যা ক্ষতি করেছে, তার প্রতিকার চাই। ক্ষতিপূরণ না দিলে পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের গ্রাম বিকাশ কেন্দ্র ব্যবস্থাপক দুরুল হুদা জানান, ৬১ জন কৃষককে ধানের বীজ দিয়েছি তাদের ফসল হয়নি। কারণ অনুসন্ধানের চেষ্টা করছি। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানিয়েছি ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কোনো আশ্বাস এখনও পাইনি। নিম্নমানের বীজ দিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, পিকেএসএফ-এর অর্থায়নে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ বিতরণ করেছি। পিকেএসএফ কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বিএডিসির ব্রী-৫২ জাতের বীজ কৃষককে দিয়েছি। তবে ধানের শীষ বের হওয়ার সময় অধিক তাপমাত্রা থাকায় এমনটি হতে পারে বলে তিনি সিসি নিউজকে জানান।

দিনাজপুরস্থ গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রের এ প্রকল্পটির সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার আব্দুস সালাম জানান, ধানের ফলন কম হওয়ার বিষয়টি আমরা তদন্ত করছি। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট সুপারিশ করা হয়েছে। তিনি জানান, বন্যা কবলিত এলাকা হিসেবে তিস্তা পাড়ের কৃষকদের জন্য দুই বছর মেয়াদী প্রকল্পটিতে অন্যান্য ফসলের চাষাবাদ রয়েছে। এবারের বিষয়টি মাথায় রেখে আগামী ফসলগুলো ফলনে সঠিক নজরদারি করা হবে।

ডিমলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোঃ সেকেন্দার আলী জানান, কৃষকের ক্ষতির বিষয়টি বিভিন্ন মাধ্যমে আমি জেনেছি। তাছাড়া ওই এনজিওতে অবশ্যই একজন কৃষি বিষয়ক কর্মকর্তা রয়েছেন। তিনি বলেন, একদিনের প্রশিক্ষনে একটি ফসল উৎপাদনের খুঁটিনাটি কৃষকের মাঝে তুলে ধরা আদৌ সম্ভব নয়। মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের সাথে থেকে দেখভাল করা হলে প্রকল্পটি সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ