• বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ন |

স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করায় সংক্রমণের হার বাড়ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সিসি নিউজ ডেস্ক ।। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা উপেক্ষা করায় সংক্রমণের হার বাড়ছে। একই সঙ্গে হাসপাতালের রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। আজ রোববার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে দেশের ৮টি বিভাগীয় শহরে ৪৬০ শয্যা বিশিষ্ট সমন্বিত ক্যানসার, কিডনি ও হৃদ্‌রোগ ইউনিটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন তিনি এ কথা বলেন।

জাহিদ মালেক বলেন, যখন থেকে সংক্রমণ বাড়া শুরু হয়েছে, তখন থেকেই সতর্কতা নিয়ে প্রচার করে যাচ্ছি। আগেই বলেছিলাম স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে, মাস্ক পরতে হবে, গণজমায়েত কমাতে হবে, সামাজিক অনুষ্ঠানগুলো স্বাস্থ্য বিধি অনুযায়ী করতে হবে। কিন্তু আফসোসের বিষয় কেউ এসব বিষয়ে কর্ণপাত করেনি। যার ফলে দেশে সংক্রমণের হার বাড়ছে। একই সঙ্গে হাসপাতালের রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে।

এ অবস্থায় করণীয় প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এরই মধ্যে সরকারিভাবে কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মানতে আজ অথবা কালের মধ্যেই একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। এর মাধ্যমে পূর্বে যে নির্দেশনাগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছিল, সেগুলো বাস্তবায়নের জন্য সারা দেশে বার্তা চলে যাবে। আমরা কেবিনেট থেকে জানতে পেরেছি এর কার্যকারিতাও খুব শিগগিরই শুরু হয়ে যাবে।’

নিজেদের সচেতন হতে হবে উল্লেখ করে জাহিদ মালেক বলেন, ‘আমরা যতই নির্দেশনা পাঠাই না কেন, জনগণের ওপর নির্ভর করবে তারা এটা মানছে কী না? কাজেই নিজেদেরই সচেতন হতে হবে। শিশুরা সংক্রমিত হচ্ছে, এমনকি বয়স্করাও সংক্রমিত হচ্ছে। সংক্রমণ মোকাবিলায় আমাদের দায়িত্বশীল হতে হবে।’

এর আগে মূল অনুষ্ঠানে মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশে ক্যানসার রোগী আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। প্রতিবছর প্রায় ১ লাখ লোক এই রোগে মৃত্যুবরণ করে এবং দেড় লাখ লোক নতুন করে আক্রান্ত হয় ক্যানসারে। দেশে প্রায় বিশ লাখ ক্যানসারের রোগী রয়েছে। কিন্তু চিকিৎসা এখনো অপ্রতুল। সারা দেশে ক্যানসার রোগীর চিকিৎসায় বেড সংখ্যা ৫০০ এর বেশি নয়। ক্যানসার চিকিৎসার রেডিও থেরাপি যন্ত্র সারা দেশে সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে ২০ থেকে ২৫ টির বেশি হবে না।

এ ছাড়া বছরে ২ কোটি লোক কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়। বছরে মারা যায় প্রায় ২০ হাজারের বেশি লোক এবং ৩০ হাজার মানুষের ডায়ালাইসিসের প্রয়োজন হয়ে থাকে। কিন্তু সরকারি-বেসরকারি মিলে সারা দেশে দিনে ২ হাজারের বেশি লোকের ডায়ালাইসিস করানো সম্ভব নয়। ফলে বহু লোক চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হয়। বিশেষ করে গরিব মানুষ।

জাহিদ মালেক জানান, হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রায় লক্ষাধিক লোক মারা যায়। দেশে কোন না কোনোভাবে কোটির ওপরে লোক হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত আছে। দেশে সরকারি-বেসরকারিভাবে হৃদ্‌রোগের চিকিৎসা উন্নতি লাভ করেছে। কিন্তু তুলনামূলক সেটা অপ্রতুল। তবে দেশের ৮ বিভাগীয় শহরে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৪৬০ শয্যাবিশিষ্ট সমন্বিত ক্যানসার, কিডনি ও হৃদ্‌রোগ ইউনিট স্থাপন হলে স্বাস্থ্য খাতে অভূতপূর্ব পরিবর্তন আসবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ছাড়া উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য ও সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক মো. ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ, স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ