• বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২, ১২:০৮ অপরাহ্ন |

ডিমলায় আওয়ামীলীগ অফিস বিদ্রোহীদের দখলে

সিসি নিউজ ।। নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের অফিস দখলে নিয়েছে বিগত ইউপি নির্বাচনে নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নেয়া আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা। গত ৯ জানুয়ারী সকালে ওই ইউনিয়নের কলোনি বাজারে অবস্থিত আওয়ামীলীগ অফিসের তালা ভেঙে ফেলে তারা দখলে নেয়। চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে এ ইউনিয়নে দলীয় ও বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচন করায় দলের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভেদের সৃষ্টি হয়।

সূত্র মতে, চতুর্থ ধাপের নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী আব্দুস সাত্তার বুলু ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ অফিসটিতে নির্বাচনী অফিস হিসেবে যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা করেন। নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সদস্য আব্দুল লতিফ খান আনারস প্রতিক নিয়ে নির্বাচন করেন। ফলে উপজেলা আওয়ামীলীগ তাঁকে দল থেকে বহিস্কার করেন। এ সময় দলের ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে প্রচার-প্রচারনা চালায়। নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে হারিয়ে তিনি জয়লাভ করেন।

ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি আজহার আলী জানান, ইউপি নির্বাচনে দল থেকে বহিস্কৃত আনারস প্রতিকের প্রার্থী আব্দুল লতিফ খান জামায়াত-বিএনপির ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে তিনি ও তাঁর অনুসারীরা বেপরোয়া হয়ে আওয়ামীলীগের অফিসের তালা ভেঙে অফিস দখল করেছেন। তিনি দলীয় ভাবে এসব কর্মকান্ডের সাথে জড়িতদের বিচার দাবি করেন।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ লতিফ খান মিন্টু জানান, আওয়ামীলীগের কর্মী আব্দুল মালেক, বদিউজ্জামান বদি, রেজাউল ইসলাম, আইনুদ্দিন হক, জহিরুল ইসলাম, আব্দুল বারেক, জালাল হোসেনসহ অনেকে নৌকার বিপক্ষে ভোট করেছে। এদেরকে নিয়ে দল করছেন সদ্য বহিষ্কৃত নব্য আওয়ামী লীগার বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান। তিনি তাদেরকে দিয়ে এসব অবৈধ কর্মকান্ড চালাচ্ছেন।

এসব অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ১নং ওয়ার্ডের সম্পাদক বদিউজ্জামান বদি জানান, দলীয় কার্যক্রমের জন্য অফিসের চাবি না দেওয়ায় আমরা তাৎক্ষনিক দলীয়়ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে তালা ভেঙে অফিসটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করেছি।

নৌকার প্রতীকের পরাজিত প্রার্থী আব্দুস সাত্তার বুলু জানান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি না থাকায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমাকে অফিসের চাবি দিয়েছিলেন নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য। ভোট শেষে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা অফিসের তালা ভেঙে দখল করে নেয়।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান জানান, অফিসের তালা ভেঙ্গে দখলের বিষয়ের ঘটনা আমার জানা নেই। আমাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আমি অফিসে যাই না। এ ঘটনায় আমাকে জড়ানো কোন ব্যাক্তির উদ্দেশ্য থাকতে পারে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক সরকার মিন্টু ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। দলের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ আফতাব উদ্দিন সরকারকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। সাংসদ তদন্ত করে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ