• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ১১:৫৯ অপরাহ্ন |

নীলফামারীতে আলুর দরপতনে চাষীদের বেহাল অবস্থা

সিসি নিউজ ।। চাহিদার তুলনায় সরবরাহ বেশি হওয়ায় নীলফামারীতে আলুর বাজারে দরপতন ঘটেছে। স্থানীয় সেভেন জাতের প্রতি কেজি আলু ৫ থেকে ৬ টাকা বিক্রি হচ্ছে। দামের আশায় অনেক চাষী খুলনার বাজারে আলু নিয়ে বিপাকে পড়েছে। সেখানে ৭ থেকে ৮ টাকায় প্রতি কেজি আলু বিক্রয় হওয়ায় পরিবহনের ভাড়া মেটানো সম্ভব হচ্ছে না।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যে চলতি মৌসুমে দেশে ১ কোটি ১৩ লাখ ৭১ হাজার টন আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে, যা গত বছরের প্রকৃত উৎপাদনের থেকে প্রায় সাড়ে ৪ লাখ টন বেশি। গত অর্থবছর (২০১৯-২০) দেশে আলুর উৎপাদন হয়েছিল ১ কোটি ৯ লাখ ১৭ হাজার টন। দেশে বছরে আলুর চাহিদা মাত্র ৭৭ লাখ টন। এতে বছরে ২৬ থেকে ৩৭ লাখ টন আলু উদ্বৃত্ত থেকে যাচ্ছে। যা বছরে রফতানি হচ্ছে মাত্র ৩৫ থেকে ৫০ হাজার টন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নীলফামারীতে বর্তমানে পাইকারী বাজারে সেভেন জাতের আলু প্রতি কেজি ৫ থেকে ৬ টাকায় বিক্রি হলেও খুচরা দোকানে এ জাতের আলু প্রতি কেজি ১০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। যা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ২০ থেকে ২৫ টাকা দরে। গত বছর এ সময়ে প্রতিকেজি আলু ৪০ থেকে ৪৫ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। একটি সূত্র মতে, বিগত বছর আলু নিয়ে সিন্ডিকেটের কারণে অস্বাভাবিকভাবে মূল্য বেড়ে যায় আলুর। এবছরও মধ্যস্বত্তভোগিদের ওই সিন্ডিকেটের কারনে আলুর দরপতন ঘটেছে।

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার বাহাগিলীর আলু চাষী আকবর আলী জানান, গত ২০ বছর ধরে আলুর চাষ করছেন কিন্তু কখনও তিনি এমন দরপতন দেখি নাই। এবার দুই বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছেন। কামেলা, সার ও বীজসহ প্রতিবিঘায় তার খরচ হয়েছে ২৩ হাজার টাকা। প্রতিবিঘায় ২৫০০ কেজি আলু পেয়েছেন। দরপতনের কারণে বিঘাপ্রতি ১০ হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি।

নীলফামারী সদরের সোনারায়ের কৃষক আহমেদ আলী জানান, ঋণ নিয়ে তিন বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছিলেন। গত সপ্তাহে ১৭ হাজার টাকায় ট্রাক ভাড়া করে খুলনায় গিয়ে সাড়ে ৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে হয়েছে। সেখানে ট্রাক থেকে প্রতিবস্তা আলু নামাতে কুলিকে ১৩ টাকা আর আড়তদারকে প্রতি কেজিতে ত্রিশ পয়সা করে দিতে হয়েছে। এসব দেয়ার পর লোকসানের পরিমাণ আরো বেড়ে গেছে। আলু বিক্রি করে ট্রাক ভাড়া দিতে পারি নাই।

সৈয়দপুরের পাইকারী বাজারের আড়ৎদার কবিরুল ইসলাম জানান, গত বুধবার সেভেন জাতের আলু প্রতি কেজি ৫ থেকে ৬ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। এমন দরপতনে আলু চাষীদের কামেলা ও পরিবহন খরচ উঠছে না। তিনি জানান, এ জাতের আলুর উৎপাদন এ বছর অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশি। এ পণ্যটি বেশিদিন সংরক্ষণ করে রাখা যায় না। তাই বাজারে দরের তারতম্য ঘটে। তবে সিন্ডিকেটের কারণে দরপতনের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

নীলফামারী সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কামরুল হাসান জানান, আলুর ফলন ভালো হয়েছে বটে কিন্তু দরপতনের কারন ফলনের জন্য নয়। এক-দেড় মাস আগে এ আলু ৬০ থেকে ৬৫ টাকা দরে বাজারে বিক্রি হয়েছে। ওইসব জমিতে নতুন করে ফের আলু চাষ করা হয়েছে, যা ইতিমধ্যে বাজারে এ আলু আসছে। ফলে বাজারে আলুর সরবরাহ বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে আলু ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারনে আলুর দরপতন ঘটেছে এমনটি মনে করেন তিনি।

এদিকে বাজারে আলুর দরপতন হলেও ফুলকপি, বাঁধাকপি, বেগুন, শসা, শিম, লাউসহ শীতের অন্যান্য সবজি বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। তবে রসুন, পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ, আদা, মটরশুটির দাম কমেছে। নীলফামারী সবজি বাজারে ফুলকপি ৩৫, বাঁধাকপি ৩০, শিম ৪০, লাউ প্রতি পিস ৩০ থেকে ৩৫, বেগুন ৩০ থেকে ৪০, পেঁপে ৩০ টাকা, শসা ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ