• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ১১:৩৭ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরের স্কুলছাত্র মাস্ক পরিধান আর কলা খেয়ে বিশ্ব রেকর্ড

সিসি নিউজ ।। দ্রুততম সময়ে ১০টি সার্জিক্যাল মাস্ক পরিধান ও হাতের স্পর্স ছাড়াই কলা খেয়ে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়েছে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী অন্তু। সে নীলফামারী সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের বাংলা ভার্সণের দশম শ্রেণির ছাত্র। নাফিস ইসতে অন্তু উপজেলার নীলকুঞ্জ আবাসিক এলাকার ইউনূছ আলী ও নাসমুন নাহার দম্পতির বড় সন্তান।

সূত্র মতে, মহামারী করোনায় বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়ার ইচ্ছা জাগে অন্তুর। প্রথমে স্টাপলারের পিন বের করে চেন তৈরি করে রেকর্ড গড়ার চেষ্টা করে সে। পরে দ্রুততম সময়ে ১০টি সার্জিক্যাল মাস্ক পরিধান ও হাতের স্পর্স ছাড়াই কলা খেয়ে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়ে অন্তু।

গত বছরের ১৩ এপ্রিল গিনেস ওয়ার্ল্ডে আবেদন করে অন্তু। ৪ মে গিনেস কর্তৃপক্ষ অন্তুর আবেদন গ্রহণ করে ১০টি সার্জিক্যাল মাস্ক দ্রুততম পরিধানের অনুমতি দেয়। অবশেষে ১৪ জুলাই দীর্ঘদিনের পরিশ্রম সফল হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ পিলের ৭.৩৫ সেকেন্ডের রেকর্ড ভেঙে ৭.১৬ সেকেন্ডে ১০টি মাস্ক পরে গিনেস ওয়ার্ল্ডে রেকর্ড গড়ে অন্তু। ৬ নভেম্বর রাতে গিনেস ওয়ার্ল্ডের বার্তা এসেছে অন্তুর সফলতার।

একই তারিখে হাতের ব্যবহার ছাড়াই একটি কলা মুখ দিয়ে খোসা ছাড়িয়ে খেয়ে কানাডার মাইক জ্যাকের ৩৭.৭ সেকেন্ডের রেকর্ড ভেঙেছে ৩০.৭ সেকেন্ডে। এর ফল স্বরুপ অন্তু ১৯ ডিসেম্বর হাতে পেয়েছে গিনেস ওয়াল্ডের দুটি সনদপত্র। অল্প বয়সে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়ায় আনন্দিত অন্তুর পরিবার ও বিদ্যালয়ের সহপাঠীসহ শিক্ষকমণ্ডলী।

নাফিস ইসতে তৌফিক অন্তু জানান, করোনাকালে বাসায় বসে পড়াশুনার পাশাপাশি টেলিভিশন দেখে ইচ্ছে জাগে গিনেস ওয়ার্ল্ডে রেকর্ড গড়ার। তারপর অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে তাকে। অন্তুর ইচ্ছে বড় হয়ে একজন প্রকৌশলী হওয়ার।

অন্তুর মা নাসমুন নাহার জানান, ছোট থেকেই সে বিভিন্ন যন্ত্রপাতি কেনা নিয়ে ব্যস্ত থাকত। পোশাক কেনার কোন চাহিদা নেই তার। আমরা যা কিনে দেই, সে তাতেই খুশি থাকে। একটু সময় পেলেই যন্ত্রপাতি নিয়ে বসে পড়ে। প্রতিনিয়তই তার নতুন কিছু অবিষ্কারের চিন্তা। ছেলে বিশ্ব রেকর্ড করেছে এতে আমরা গর্বিত।

ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ লে. কর্নেল সরকার মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, অন্তু নিজের প্রচেষ্টায় গিনেজ ওয়ার্ল্ডে দুটি রেকর্ড গড়েছে। দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র অন্তুকে শিক্ষকরা তার কাজে উৎসাহ ও সহযোগিতা করেছি। ২০২১ সালে শুধু অন্তু নয়, আমাদের প্রতিষ্ঠানের আরও দুজন শিক্ষার্থী বিভিন্ন পর্যায়ে সেরাদের খাতায় নাম লিখিয়েছে।

তিনি আরো জানান, বিভিন্ন পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষার্থীর ছবি তুলে প্রধান ফটকের সামনে ঝুলিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমার পরামর্শ থাকবে, শুধু রেকর্ড গড়া নিয়ে পড়ে থাকলে হবে না, পড়ালেখার প্রতিও কঠোর নজর রাখতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ