• সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ১১:৩২ অপরাহ্ন |

নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের আইন পাস

সিসি নিউজ ডেস্ক।। পাস হয়েছে নির্বাচন কমিশন গঠনে বহুল আলোচিত ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন অন্যান্য কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২ ’। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বিলটি সংসদে পাসের প্রস্তাব করলে সেটি কণ্ঠভোটে পাস হয়। রাষ্ট্রপতির সইয়ের পর বিলটি আইনে পরিণত হবে।

নতুন এই আইনে নির্বাচন কমিশন গঠনে গঠিত সার্চ কমিটিতে রাষ্ট্রপতির মনোনীত দুই বিশিষ্ট নাগরিকের মধ্যে একজন নারী রাখার বিধান যুক্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া সার্চ কমিটির কাজ ১৫ কার্য দিবসের মধ্যে শেষ করতে বলা হয়েছে। সংসদে উত্থাপিত বিলে এই সময়সীমা ১০ কার্যদিবস ছিল। এই দুটি সংশোধনীই এমপিদের থেকে সুপারিশ এসেছে।

এর আগে বিলের ওপর দেওয়া জনমত যাচাই, বাছাই কমিটিতে পাঠানো এবং জাতীয় পার্টি, বিএনপি, জাসদ ও ওয়ার্কার্স পার্টির সংসদ সদস্যরা বিলের ওপর এসব প্রস্তাব দেন। আইনমন্ত্রী কয়েকটি সংশোধনীর প্রস্তাব গ্রহণ করেন। পরে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর বিলটি কণ্ঠভোটে দিলে তা সর্বাধিক ভোটে পাস হয়।

ইসি নিয়োগের আইনটি নিয়ে সংসদে প্রায় তিন ঘণ্টা আলোচনা হয়। জনমত যাচাই ও সংশোধনীর প্রস্তাবে আলোচনায় অংশ নেওয়া বেশির ভাগ সাংসদ আইনের অসামঞ্জস্য আছে বলে উল্লেখ করেন। তবে আইনমন্ত্রী সেসব সমালোচনা নাকচ দিয়ে আইনের পক্ষে মতামত ব্যক্ত করেন।

দেশের ইতিহাসে এই প্রথম নির্বাচন কমিশন গঠনে আইন হলো। এর মধ্য দিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন আইন নিয়ে সব কল্পনা-জল্পনার অবসান হল। পরবর্তী নির্বাচন কমিশন গঠন হবে এই আইনের ভিত্তিতে। সেই নতুন নির্বাচন কমিশন আয়োজন করবে আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনসহ অন্যান্য নির্বাচন।

এর আগে, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গত রোববার বহুল আলোচিত ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল-২০২২’ রবিবার সংসদে উত্থাপন করেন। পরে বিলটি পরীক্ষা করে সাত দিনের মধ্যে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। বিলটি সোমবার সংসদীয় কমিটি আলোচিত হয়। সেখানে খসড়া আইনে দুটি পরিবর্তন আনা হয়। এর পর বিলটি বুধবার জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করেন সংসদীয় কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকার।

প্রথমে বিলের নাম ছিল, ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল’। সংসদে সংশোধনী প্রস্তাব গ্রহণের মাধ্যমে এখন নাম হবে ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ বিল’।

ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন সার্চ কমিটিতে রাষ্ট্রপতি মনোনীত দুজন বিশিষ্ট নাগরিকের মধ্যে একজন নারী রাখার প্রস্তাব দেন। আইনমন্ত্রী সেই প্রস্তাবে সায় দিলে, সংসদ তা ভোটের মাধ্যমে গ্রহণ করে। অর্থাৎ, ইসি গঠনের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে নাম সুপারিশের জন্য যে সার্চ কমিটি গঠিত হবে সেখানে একজন নারী সদস্যও থাকবেন।

বিলে বলা ছিল, রাষ্ট্রপতি ছয় সদস্যের অনুসন্ধান কমিটি গঠন করবেন, যার সভাপতি হবেন প্রধান বিচারপতি মনোনীত আপিল বিভাগের একজন বিচারক। সদস্য হিসেবে থাকবেন-প্রধান বিচারপতির মনোনীত হাইকোর্ট বিভাগের একজন বিচারক, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, সরকারি কমিশনের চেয়ারম্যান এবং রাষ্ট্রপতি মনোনীত দুজন বিশিষ্ট নাগরিক।

এখন রাষ্ট্রপতির মনোনীত ওই দুজন বিশিষ্ট নাগরিকের মধ্যে একজন নারী রাখার বিধান যুক্ত হয়েছে।

বিলে সার্চ কমিটির কাজ সমাপ্ত করতে ১০ কার্যদিবসের বিধান রাখা হয়েছিল। পরে সেটি সংশোধন করে ১৫ কার্যদিবস করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির ফখরুল ইমামের এ সংক্রান্ত সংশোধনী সংসদ গ্রহণ করে।

নির্বাচন কমিশন গঠন আইনে কোথায় কী আছে
‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইনে’ একটি সার্চ কমিটি গঠনের কথা বলা হয়েছে। আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনারদের শূন্য পদে নিয়োগদানের জন্য এ আইনে বর্ণিত যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তিদের নাম সুপারিশ করার উদ্দেশ্যে নিম্নবর্ণিত ছয় সদস্য সমন্বয়ে কমিটি গঠন করবেন। সেই সার্চ কমিটিতে যারা থাকতে পারবেন: (ক) প্রধান বিচারপতি কর্তৃক মনোনীত আপিল বিভাগের একজন বিচারক, যিনি অনুসন্ধান কমিটির সভাপতি হবেন; (খ) প্রধান বিচারপতি কর্তৃক মনোনীত হাইকোর্ট বিভাগের একজন বিচারক; (গ) বাংলাদেশের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক; (ঘ) চেয়ারম্যান বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন এবং (ঙ) রাষ্ট্রপতি কর্তৃক মনোনীত দুজন বিশিষ্ট নাগরিক। এর মধ্যে একজন নারী সদস্য থাকবেন।

আইনে বলা হয়েছে, তিনজন সদস্যের উপস্থিতিতে সার্চ কমিটির সভার কোরাম গঠিত হবে।

সার্চ কমিটির সভায় উপস্থিত সদস্যগণের সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোটের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে। ভোটের সমতার ক্ষেত্রে সভায় সভাপতিত্বকারী সদস্যের দ্বিতীয় বা নির্ণয়ক ভোট প্রদানের ক্ষমতা থাকবে। অনুসন্ধান কমিটি গঠনের ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে তাদের সুপারিশ রাষ্ট্রপতির কাছে পেশ করবেন।

যেভাবে কাজ করবে সার্চ কমিটি
খসড়া আইনে সার্চ কমিটির (অনুসন্ধান কমিটি) কাজ সম্পর্কে বলা হয়েছে, এ কমিটি স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতার নীতি অনুসরণ করে দায়িত্ব পালন করবে। আইনে বেঁধে দেওয়া যোগ্যতা, অযোগ্যতা অভিজ্ঞতা, দক্ষতা ও সুনাম বিবেচনা করে সিইসি ও নির্বাচন কমিশনার পদে নিয়োগের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ করবে। এ অনুসন্ধান কমিটি সিইসি ও কমিশনারদের প্রতি পদের জন্য দুজন করে ব্যক্তির নাম সুপারিশ করবে। কমিটির গঠনের ১০ কার্যদিবসের মধ্যে সুপারিশ রাষ্ট্রপতির কাছে দেবে বলে খসড়া প্রস্তাবে বলা হয়েছে। বিলে আরও বলা আছে সার্চ কমিটি সিইসি এবং নির্বাচন কমিশনার পদে যোগ্যদের অনুসন্ধানের জন্য রাজনৈতিক দল এবং পেশাজীবী সংগঠনের কাছ থেকে নাম আহ্বান করতে পারবে।

সিইসি ও কমিশনারদের যোগ্যতা ও অযোগ্যতা
সিইসি ও নির্বাচন কমিশনার পদে কাউকে সুপারিশের ক্ষেত্রে তিনটি যোগ্যতা থাকতে হবে বলে বিলে বলা হয়েছে। তাঁকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে, বয়স হতে হবে ন্যূনতম ৫০ বছর এবং কোনো গুরুত্বপূর্ণ সরকারি, বিচার বিভাগীয়, আধা সরকারি বা বেসরকারি পদে তার ন্যূনতম ২০ বছর কাজের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

প্রস্তাবিত আইনে সিইসি ও কমিশনার পদের জন্য ছয়টি অযোগ্যতার কথাও বলা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, আদালত অপ্রকৃতিস্থ ঘোষণা করলে, দেউলিয়া হওয়ার পর দায় থেকে অব্যাহতি না পেলে, কোনো বিদেশি রাষ্ট্রের নাগরিকত্ব নিলে কিংবা বিদেশি রাষ্ট্রের প্রতি আনুগত্য ঘোষণা বা স্বীকার করলে, নৈতিক স্খলনজনিত ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে, ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইমস (ট্রাইব্যুনালস) অ্যাক্ট-১৯৭৩ বা বাংলাদেশ কোলাবরেটরস (স্পেশাল ট্রাইব্যুনালস) অর্ডার-১৯৭২ এর অধীনে কোনো অপরাধের জন্য দণ্ডিত হলে এবং আইনের দ্বারা পদাধিকারীকে অযোগ্য ঘোষণা করছে না, এমন পদ ব্যতীত প্রজাতন্ত্রের কর্মে লাভজনক পদে অধিষ্ঠিত থাকলে কোনো ব্যক্তি নির্বাচন কমিশনার হওয়ার অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ