• রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ১০:২৪ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

সৈয়দপুরে টিকাদান কেন্দ্র মানুষের উপচেপড়া ভীড়

সিসি নিউজ।। নীলফামারীর সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের স্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রে টিকা নেওয়ার জন্য বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার নানা বয়সী মানুষের উপচে পড়া ভীড়। শনিবার এ সময় টিকা নিতে আগত মানুষজন সারিবদ্ধভাবে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে টিকা গ্রহন করছেন। সুশৃংখল ও সুষ্ঠুভাবে টিকা প্রদানের জন্য আইন-শৃংখলাবাহিনীর পুলিশ, আনসাবাহিনীর সদস্যদের পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সুভা’র স্বেচ্ছাসেবকরা কাজ করছেন। এ সময় ওই টিকাকেন্দ্রে টিকা নেওয়ার বিষয়ে কথা হয় বিভিন্নজনের সঙ্গে। এদের একজন হলেন সৈয়দপুর উপজেলার বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের শ্বাষকান্দর এলাকার মো. আনোয়ার হোসেন (৫৬)। এতোদিন কেন টিকা নেননি (?) এমন প্রশ্নের জবারে তিনি জানান, দিনমজুরী করি। কাজেকর্মে ব্যস্ত থাকায় টিকা নিতে পারেনি এতোদিন। সরকারিভঅবে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, আজ থেকে করোনা ভাইরাসের প্রথম ডোজ টিকাদান কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাবে। তাই আজ সময় করে টিকা নিতে এসেছি।
এ সময় ওই টিকাদান কেন্দ্রে উপস্থিত থেকে সার্বিক কার্যক্রম তদারকি করছিলেন সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু মো. আলেমুল বাসার। তিনি জানান, শনিবার একদিনে এক কোটি কোভিড ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচির আওতায় উপজেলায় মোট ৩৪টি টিকাদান কেন্দ্রে টিকাদান করা হয়। এর মধ্যে সৈয়দপুর পৌরসভা এলাকার ১৫ টি ওয়ার্ডে ১৫টি কেন্দ্র, উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে ১৮টি কেন্দ্রে এবং ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসাপাতালে একটি স্থায়ী টিকা কেন্দ্রে টিকা প্রদান করা হয়েছে।
এদিকে দুপুরে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল ওয়াহাব ভূঁইয়া নীলফামারীর সৈয়দপুরে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের স্থায়ী টিকাদান কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন ।
এ সময় নীলফামারী জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন, নীলফামারী সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহাঙ্গীর কবির, নীলফামারী স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক মো. আব্দুর রহমান, সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোখছেদুল মোমিন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শামীম হুসাইন, নীলফামারীর নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) মো. রমিজ আলম, সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. আব্দুল্লাহেল মাফী, আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. ওমেদুল হাসান সরকার, সৈয়দপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু মো. আলেমুল বাসার, উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. রবিউল আলম, সমাজ সেবা অফিসার নুর মোহাম্মদ প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।
পরিদর্শনকালে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল ওয়াহাব ভূঁইয়া টিকাদান কেন্দ্র টিকাদান কার্যক্রম ঘুরে ঘুরে দেখেন এবং টিকা নেওয়ার জন্য আগত বিভিন্ন বয়সী মানুষ ও টিকাদানের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলেন। এ সময় তিনি টিকাদানের সার্বিক বিষয়ে খোঁজ-খবর নেন।
পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল ওয়াহাব ভূঁইয়া বলেন, ইতোমধ্যে আমরা দেশে একদিনে ৮০ লাখ মানুষকে টিকাদানের টার্গেট পূরণ করেছি। তাই আমাদের পূর্ব অভিজ্ঞতা রয়েছে। ফলে আজ একদিনের যে এক কোটি মানুষকে টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে, তা খুব বেশি নয়। আর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা সত্তর ভাগ মানুষকে টিকার আওতায় নিয়ে আসার টার্গেট রয়েছে। আমরা তা পূরণে স্বাস্থ্য বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মী, প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিসহ সবাই মিলে কাজ করছি। তিনি আরো বলেন, আজ একদিনে এক কোটি কোভিড ভ্যাকসিন প্রদান কর্মসূচিতে মানুষের মধ্যে টিকা নেওয়ার যে সাড়া পরিলক্ষিত হলো, তা অভাবনীয়। আশা করি আমরা রংপুর বিভাগের শতকরা ৭০ ভাগ মানুষকে টিকার দেওয়ার টার্গেট পূরণে সফল হবো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ