• সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৫:০২ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :

পবিত্র রমজানে আত্মশুদ্ধির শিক্ষা

।। ড. মো. শাহজাহান কবীর ।। আল্লাহতায়ালার অশেষ মেহেরবানিতে বছর ঘুরে আমাদের মাঝে ফিরে আসছে পবিত্র মাহে রমজান। রহমত, বরকত ও মাগফিরাতের মাস রমজান। এ মাসে বান্দার প্রতি মহান আল্লাহর অশেষ রহমত ও বরকত অবতীর্ণ হয়। রমজান মাসের একটি ইবাদত অন্য মাসের ৭০টি ইবাদতের সমান। এ মাসের একটি নফল ইবাদত অন্য মাসের একটি ফরজ ইবাদতের সমান। বান্দার গুনাহ মাফের মাস রমজান; ইবাদতের মাস রমজান। আত্মশুদ্ধির মাস রমজান নিজেকে তৈরি করার মাস। প্রশিক্ষণের মাস রমজান। তাই এ মাস সবার কাছে অত্যন্ত গুরুত্ব ও তাৎপযপূর্ণ। সবাই চায় কীভাবে এ মাস থেকে বেশি বেশি উপকৃত হওয়া যায়। সবাই আন্তরিকভাবে কামনা করে নিজেকে সব রকম পাপ-পঙ্কিলতা থেকে মুক্ত করে পবিত্র কোরআন ও রাসুলে পাক (সা.)-এর দেখানো পথে জীবন শুরু করতে। হিজরি সালের বারো মাসের মধ্যে একটি মাসের নাম স্পষ্টভাবে পবিত্র কোরআনে উল্লেখ করা হয়েছে; সে মাসটি হলো রমজান। যা এ মাসের প্রতি অসামান্য গুরুত্ব ও মর্যাদার পরিচয় বহন করে।
রোজা ফরজ হয় দ্বিতীয় হিজরির শাবান মাসে। এ বিষয়ে পবিত্র কোরআনের সুরা বাকারার ১৮৩ আয়াতে এরশাদ হয়েছে :হে ইমানদারগণ! তোমাদের প্রতি রমজানের রোজা ফরজ করা হয়েছে, যেমনিভাবে ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তী উম্মতদের প্রতি। যাতে তোমরা মুত্তাকি হতে পারো। এ আয়াত থেকে বোঝা যায়, রোজার বিধান দেওয়া হয়েছে তাকওয়া অর্জনের জন্য। সর্বোপরি যাবতীয় গুনাহ বর্জন করে নেক আমল করার মাধ্যমে নিজেকে পরিশুদ্ধ ও মহান আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টি লাভ করে জান্নাতপ্রাপ্তির পথ সহজ করা।
রমজানের একটি তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হলো, এ মাসে মহান আল্লাহ পাক প্রায় সব আসমানি কিতাব নাজিল করেন। এ বিষয়ে হাদিসে বর্ণিত হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর প্রতি সহিফা নাজিল হয় রমজানের ১ তারিখে; তাওরাত রমজানের ৬ তারিখে; যাবুর রমজানের ১২ তারিখে; ইন্‌জিল রমজানের ১৮ তারিখে এবং মহাগ্রন্থ আল-কোরআন রমজান মাসের কদরের রাত্রিতে অবতীর্ণ হয়। এ বিষয়ে পবিত্র কোরআনের সুরা কদরে এরশাদ হয়েছে : নিশ্চয় আমি কোরআনকে কদরের রাত্রিতে অবতীর্ণ করেছি।
রমজান মাসে রোজা ফরজ করে মহান আল্লাহ পবিত্র কোরআনে সুরা বাকারার ১৮৫ আয়াতে এরশাদ করেন- রমজান মাস, যাতে নাজিল করা হয়েছে মহাগ্রন্থ আল কোরআন। আর এ কোরআন মানব জাতির জন্য পথের দিশা, সৎপথের সুস্পষ্ট নিদর্শন, হক ও বাতিলের পার্থক্যকারী। অতএব, তোমাদের মধ্যে যে কেউ এ মাসটি পাবে, সে যেন রোজা রাখে। যদি সে অসুস্থ কিংবা সফরে থাকে, তবে সে তা পরবর্তী সময়ে পূরণ করবে। আল্লাহ তোমাদের জন্য সহজ করতে চান। তোমাদের জন্য কঠিন করতে চান না। যাতে তোমরা সঠিকভাবে হিসাব রাখতে পারো। তোমাদের হেদায়াত দান করার দরুন আল্লাহর মহত্ত্ব বর্ণনার পর কৃতজ্ঞতা স্বীকার করো।
বুখারি শরিফে বর্ণিত- মহানবী (সা.) এরশাদ করেন, যে ব্যক্তি ইমানের সঙ্গে সওয়াবের আশায় রমজানের রোজা রাখবে, তার অতীতের গুনাহগুলো ক্ষমা করে দেওয়া হবে। অপর হাদিসে রাসুলে পাক (সা.) এরশাদ করেন, সিয়াম এবং কোরআন হাশরের ময়দানে বান্দার নাজাতের জন্য আল্লাহর কাছে সুপারিশ করবে। আল্লাহতায়ালা তাদের উভয়ের সুপারিশ কবুল করবেন।
অপর হাদিসে বর্ণিত- রাসুলে পাক (সা.) এরশাদ করেন, মানুষের প্রত্যেক নেক আমলের সওয়াব ১০ গুণ থেকে ৭০০ গুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়। হাদিসে কুদসিতে আল্লাহতায়ালা এরশাদ করেন, রোজা এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। কেননা, বান্দা রোজা রাখে শুধু আমার জন্য। আমি স্বয়ং তার প্রতিদান দেব। বান্দা তার পানাহার ও কামনা-বাসনাকে আমার সন্তুষ্টির জন্য ত্যাগ করেছে।
রমজান মাসের শুরুতেই জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেওয়া হয় এবং শয়তানকে শিকলবন্দি করে রাখা হয়। তাই শয়তানের কুমন্ত্রণা থেকে বেঁচে থাকা সহজ হয়।
আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনে এরশাদ করেন- নিশ্চয় শয়তান তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু।
রমজান মাসের শেষ দশকে রয়েছে মহিমান্বিত রজনী লাইলাতুল কদর। লাইলাতুল কদর হচ্ছে এমন এক রাত, যে রাত জেগে ইবাদ-বন্দেগি হাজার মাস ইবাদতের চেয়েও উত্তম। এক হাজার মাসের ইবাদতের হিসাব করলে, অর্থাৎ কদরের এক রাতের ইবাদত ৮৩ হাজার চার মাসের সমান। মহান আল্লাহ তার চেয়েও উত্তম বলেছেন। যে ব্যক্তি কদরের রাত্রিতে সওয়াবের আশায় ইবাদত করবে, তার অতীতের গুনাহগুলো ক্ষমা করে দেওয়া হবে। এ বিষয়ে আল্লাহতায়ালা সুরা আল কদরের ১-৩ আয়াতে এরশাদ করেন- নিশ্চয় আমি এটি অবতীর্ণ করেছি মহিমান্ব্বিত রাতে। মহিমান্বিত রাত সম্পর্কে তুমি জানো কি?
মহিমান্বিত রাত হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম। অপর হাদিসে হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, আমি রাসুলে পাক (সা.)-কে জিজ্ঞাসা করলাম- ইয়া রাসুলুল্লাহ, আমি যদি কদরের রাত্রি পাই তাহলে কি দোয়া পাঠ করব? তিনি বললেন, এই দোয়া পাঠ করবে- আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুব্বুন, তুহিব্বুল আফওয়া ফা’ফু আন্নি।
মহান আল্লাহতায়ালা আমাদের সবাইকে মাহে রমজানের গুরুত্ব ও তাৎপর্য অনুধাবন করে তার হক পরিপূর্ণভাবে আদায় করার তৌফিক দান করুন। রমজানের এ সুযোগে আমরা তাকওয়া বা আত্মশুদ্ধি অর্জনের সুযোগ যেন আমরা যথাযথভাবে কাজে লাগাই। উৎস: সমকাল
লেখক: সহকারী অধ্যাপক, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ, ফারইস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ঢাকা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ