• রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ১১:১৫ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

সৈয়দপুরে অপহৃত স্কুলছাত্রী ভারতে পাচারকালে উদ্ধার

সিসি নিউজ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে একটি শিশু পাচারকারী চক্রের কবল থেকে এক স্কুলছাত্রী নিজের বৃদ্ধিমত্ত্বা ও প্রযুক্তির বদৌলতে রক্ষা পেয়েছে। ঘটনার দুই দিন পর গত শনিবার (২১ মে) ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে অপহরণ করা ওই শিশু শিক্ষার্থীকে ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার সুন্দরপুর সীমান্ত এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-এর মাটিলা বিওপি ক্যাম্পের এবং ঝিনাইদহের মহেশপুর থানা পুলিশ সদস্যরা যৌথভাবে শ্বাষরুদ্ধকর এক অভিযান চালিয়ে মানব ও শিশু পাচার সংঘবদ্ধ চক্রের জিম্মি দশা থেকে তাদের উদ্ধার করেন। তবে বিজিবি ও পুলিশের যৌথ অভিযানে বিষয়টি আগেভাগেই টের পেয়ে মানব ও শিশু পাচারকারী চক্রের সদস্য ও পাচার কাজে সহায়তাকারীরা দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে সটকে পড়েন।

এদিকে শিশু শিক্ষার্থীকে সংঘবদ্ধ পাচারকারী চক্রের কবল থেকে উদ্ধারের বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং বিভিন্নভাবে ছড়িয়ে পড়ায় শিক্ষানগরী সৈয়দপুরের স্কুল শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন। তারা মানব ও শিশু পাচারকারী সংঘবদ্ধ চক্রের মূল হোতাসহ ওই সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িতদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

বিলম্বে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, উদ্ধারকৃত সৈয়দপুর শহরের কাজীরহাট পানির ট্যাঙ্কি এলাকার জনৈক ধর্ণাঢ্য ব্যবসায়ী ও রাজনীতিবিদের আদরের মেয়ে (১২)। সে শহরের বিমানবন্দর সড়কের অভিজাত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী।

ঘটনার দিন গত ২১ মে (বৃহস্পতিবার) বেলা ১১টার দিকে ওই মেধাবী শিশু শিক্ষার্থী প্রতিদিনের মতো তাদের বাসা থেকে স্কুলে যায়। এরপর একটি সক্রিয় মানব ও শিশু পাচারকারী চক্রের সদস্যরা সুকৌশলে স্কুল গেট থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় তাকে। এ ঘটনায় গত শুক্রবার শিশু শিক্ষার্থীর বাবা সৈয়দপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।

শিশুটির বাবা জানান, ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে ঝিনাইদহ্ জেলার মহেশপুর উপজেলার যাদবপুর ইউনিয়নের সুন্দরপুর সীমান্তবর্তী জুবলি এলাকার একটি মেহগনি গাছের বাগানের মধ্যে তার মেয়ে সহ ১১ জন শিশুকে হাত পা বেঁধে ও মুখে টেপ লাগিয়ে আটকে রাখা হয়। রাতেই তাদের সবাইকে সেখানে থেকে ভারতে পাচারের পূর্বপরিকল্পনা ছিল পাচারকারী চক্রের। সংঘবদ্ধ মানব ও শিশু পাচারকারী চক্রের সদস্যের পাচার কাজে সহায়তাকারী হিসেবে নারী সদস্যরাও উপস্থিত ছিল সেখানে।

সূত্রটি জানায়, এ সময় সেখানে সৈয়দপুর থেকে অপহৃত ওই শিশু শিক্ষার্থী তাঁর মায়ের সঙ্গে মুঠোফোনে শেষবারের মতো একটু কথা বলার আকুতি জানায় পাচার কাজে সহায়তাকারী এক নারী কাছে। এ সময় পাচারের উদ্দেশ্য অপহরণ করা শিশুটির ব্যাকুল আকুতিতে এক নারীর মন কিছুটা নরম হয়। সে শিশুটিকে তাঁর মায়ের সঙ্গে কথা বলে দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু এ সময় তাঁর (শিশু) মায়ের মুঠোফোনটি বন্ধ থাকায় তাঁর খালার সঙ্গে কথা বলেন। শিশুটি মুঠোফোনে তাঁর খালাকে বলে, “ খালামনি, তোমরা আমাকে বাঁচাও, এরা আমাকে একটু পরেই ভারতে পাচার করে দেবে।” শিশুটি মুঠোফোনে খালাকে এ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে পাচারকারী দলের সদস্যরা ওই মুঠোফোনটির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

মুঠোফোনে শিশুটির খালা এ ধরনের আবেগঘন আকুতিমিনতি শুনে তৎক্ষনাৎ ঘটনাটি তাঁর বাবা মাকে অবগত করেন। পরবর্তীতে ওই মুঠোফোনে অনেক বার চেষ্টা করেও আর যোগাযোগ করা যায়নি। এ অবস্থায় শিশুটির বাবা বিষয়টি তাৎক্ষণিক আইন-শৃংখলাবাহিনীকে সদস্যদের অবগত করেন। আর এ তথ্য পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আইন-শৃংখলাবাহিনীর ওই মুঠোফোনটি ট্যাকিং করে সেটির অবস্থান নিশ্চিত হন।

পরবর্তীতে শিশুটিকে উদ্ধারে বর্ডার গার্ড ৫৮, ব্যাটালিয়নের মাটিলা ক্যাম্পের ও ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর থানা পুলিশ সদস্যরা যৌথ অভিযোগে নামেন। এ অভিযানের এক পর্যায়ে ওইদিন রাত দেড় টার দিকে মহেশপুর উপজেলার যাদবপুর ইউনিয়নের সুন্দরপুর সীমান্তের জুবলি এলাকার একটি মেহগনি বাগান থেকে সৈয়দপুর থেকে অপহৃত শিশুসহ ১১ শিশুকে উদ্ধার করে। কিন্তু বিজিবি ও পুলিশের অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে মানব ও শিশু পাচারকারী চক্রের সদস্য সেখান থেকে দ্রুত সটকে পড়ে। সীমান্ত রক্ষা ও আইন-শৃংখলাবাহিনী অভিযানে সেখান থেকে উদ্ধার হওয়ার শিশুদের প্রত্যেকর বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে।

একটি সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, সম্প্রতি ভারত থেকে মানব ও শিশু পাচারকারী চক্রের বেশ কয়েকজন সদস্য সৈয়দপুরে এসে আঁস্তানা গড়ে তুলেছে। এ চক্রের একজন সক্রিয় সদস্য হচ্ছে সামস্ নিজামী আতিব। সে মূলত: ভারতীয় নাগরিক। গত কয়েকদিন আগে সে বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে আসেন। তাকে সৈয়দপুরের বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান করতে দেখা গেছে। কিন্তু শিশু শিক্ষার্থী অপহরণের পর থেকে তার সৈয়দপুরে দেখা মিলছে না। শহরের বিভিন্ন জায়গায় সন্ধান করেও তাকে পাওয়া যায়নি। এতে অনেকেই তাদের ফেসবুকের টাইমলাইনে ওই ব্যক্তিই ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে সৈয়দপুরের শিশু শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে নিয়ে যায় বলে উল্লেখ করে তাঁর ছবিসহ পোষ্ট দেন। এতে তাকে আইনশৃংখলাবাহিনীর হাতে তুলে দেওয়ার আহবান জানানো হয়েছে। আর এ পোষ্টটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে।

এ বিষয়ে সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল হাসনাত খানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি শিশু শিক্ষার্থী নিখোঁজে সাধারন ডায়েরীর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, উদ্ধারের বিষয়টি তিনি অবগত নন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ