• রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ১১:১৩ অপরাহ্ন |
শিরোনাম :
পদ্মা সেতুর রেলিংয়ের নাট খোলা বায়েজিদ আটক নীলফামারী জেলা শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলামের শ্বশুড়ের ইন্তেকাল সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের গ্রন্থাগারের মূল্যবান বইপত্র গোপনে বিক্রি ফেনসিডিলসহ সেচ্ছাসেবক লীগের নেতা গ্রেপ্তার এ সেতু আমাদের অহংকার, আমাদের গর্ব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ-ভারতে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকবে ৮ দিন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন বাংলাদেশের জন্য এক গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহাসিক দিন: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেতে মানতে হবে যেসব নির্দেশনা সৈয়দপুরে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ গণমানুষের সমর্থনেই পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্ভব হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

জয়পুরহাটে ভূয়া কনেসহ ৬ জন জেলহাজতে

জয়পুরহাট প্রতিনিধি।। ভূয়া কাবিননামা তৈরী করে সেই স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুক, নারী নির্যাতন ও মোটা অঙ্কের মোহরানার দাবীতে মামলা করে জেল খাটানোর পর তা ভূয়া প্রমানিত হওয়ায় কথিত কনেসহ তার ৫ সহযোগীকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে জয়পুরহাটের অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত। আজ বুধবার বিকেলে ওই আদালতের বিচারক অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন এ আদেশ দেওয়ার পর কথিত কনেসহ ৬ জনকে সন্ধ্যায় জেল হাজাতে পাঠানো হয়েছে।

কথিত কনেসহ অভিযুক্ত ৬ জন হলেন- দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার বাসুদেবপুর গ্রামের মৃত রুবেল শেখের মেয়ে রিনী আক্তার (২৮), একই গ্রামের উত্তর পাড়ার এবারত আলীর ছেলে ইসরাইল শেখ (ইছা), একই উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামের মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে আবু স্ঈাদ, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার উত্তর গোপালপুর গ্রামের হায়দার আলীর ছেলে সোহেল রানা, একই উপজেলার রতনপুর গ্রামের মৃত কেরামত আলীর ছেলে পারভেজ আলী ও বগুড়া সদর উপজেলার আটাপাড়া গ্রামের মৃত ইমান আলী সরদারের ছেলে রবিউল ইসলাম।

মামলা সূত্রের বরাত দিয়ে বাদী পক্ষের আইনজীবি এ্যাডভোকেট মানিক হোসেন জানান, রিনী আক্তার ব্যবসার সুবাদে প্রায় বগুড়া জেলা শহরে যাতায়াত করতেন। রিনী তার মোটর সাইকেলের রেজিষ্ট্রেশনের প্রয়োজনে বগুড়া সদর ডাক অফিসের সরকারি কর্মকর্তা আল আমিনের সাথে পরিচয় হয় ডাক অফিসে । পূর্ব পরিচয়ের জেরে রীনি জানতে পারেন আল আমিন মোটা বেতনের এক জন সরকারি চাকুরে। অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার কৌশল হিসেবে প্রথমে তার ব্যবসায় পুঁিজ বিনিয়োগ করতে আল আমিনকে প্রলুব্ধ করেন।

আল আমিন এতে রাজী না হলে রিনী আক্তার তার সহযোগীদেও স্বাক্ষী করে জয়পুরহাট জেলা শহরের পাটারপাড়া এলাকার মৃত কাজী নূরল ইসলামকে বিয়ের কাজী দেখিয়ে বিয়ের ভূয়া রেজিষ্ট্রি ও ৫ লাখ টাকার দেন মোহরের কাবিন নামা তৈরী করেন। পরে ২০২১ সালের ২২ আগষ্ট রিনী দিনাজপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে মামলা করেন। একই বছর ১৯ অক্টোবর সেই মামলায় হাজিড়া দিতে গেলে আদালত আল আমিনকে দিনাজপুরের জেল হাজাতে নেওয়া হয় ও গত ৩১ অক্টোবর তিনি জামিনে মুক্ত হন।

এ দিকে সেই ভূয়া কাবিন নামা চ্যালেঞ্জ করে আল আমিন গত বছর ৯ আগষ্ট জয়পুরহাট চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে রিনীসহ তার সহযোগীদের (কাবিন নামার স্বাক্ষী) বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এতে আদালত তদন্তের জন্য জেলা সাব রেজিষ্টারের কাছে নির্দেশ দিলে সদর সাব রেজিষ্টার দোস্ত মোহাম্মদ গত বছর ১১ অক্টোবর আদালতে তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করেন। ওই তদন্ত রিপোর্টে রিনী ও আল আমিনের বিয়ের কাবিন নামা ভূয়া প্রমানিত হয়।

আজ বুধবার বাদী পক্ষের আইনজীবি এ্যাডভোকেট মানিক হোসেন ও আসামীগনের পক্ষের আইনজীবি এ্যাডভোকেট এস এম আশফাকুল আলম রাজু’র যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। তদন্ত প্রতিবেদনে ভূয়া তথ্য দিয়ে আল আমিনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করায় রিনীসহ তার ৬ সহযোগীকে জেল হাজাতে পাঠানোর নির্দেশ দেন অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল আদালতের বিচারক আব্দুল্লাহ্ আল মামুন।

আসামীগনের পক্ষের আইনজীবি এ্যাডভোকেট এস এম আশফাকুল আলম রাজু বলেন, এ আদেশের বিরুদ্ধে তারা আপীল করবেন।

জয়পুরহাট আদালতের পুলিশ পরিদর্শক আব্দুল লতীফ খান জানান, ‘ আইনী প্রক্রিয়া শেষে আসামীদের সন্ধ্যায় জেল হাজাতে পাঠানো হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ