• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে ৫ সহযোগীসহ কুখ্যাত চোর ফজল গ্রেপ্তার

নীলফামারী প্রতিনিধি ।। নীলফামারীতে খাবার পানিতে চেতনানাশক ট্যাবলে মিশিয়ে বাড়ির সদস্যদের অচেতন করে বাড়ি-ঘরের মালামাল চুরিকরা চক্রের প্রধান ও তাঁর পাঁচ সহযোগীকে গ্রেপ্তার করেছে জলঢাকা থানা পুলিশ।
সোমবার নীলফামারীর জলঢাকা, ডিমলা এবং পঞ্চগড় জেলার দেবগঞ্জ উপজেলায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় এসময় তাদের কাছ থেকে চোরাই দু’টি মোটরসাইকেল ও স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন চোর চক্রের প্রধান ফজল আলী ওরফে চোর চেয়ারম্যান ফজল (৩৯), তাঁর সহযোগী আল-আমিন (২৬), মঈন হাসান ওরফে শিউল (২৮), ডাবলু মিয়া (৪৫), মো. সোহাগ (২০) ও হাসান আলী (১৯)।
জলঢাকা থানার পরিদর্শক ফিরোজ কবির জানান, র্দীঘ দিন থেকে জলঢাকাসহ নীলফামারী জেলা এবং আশপাশের বিভিন্ন জেলায় বাড়ি-ঘরে অভিনব কায়দায় চুরি সংগঠিত হয়ে আসছে।
এরই ধারাবাহিকতরায় গত ১৪ জুন গভীর রাতে জলঢাকা উপজেলার কিসামত বটতলা গ্রামের নুরন্নবীর বাড়িতে অভিনব কায়দায় একটি মোটরসাইকেল, স্বর্ণের এক জোরা হাতের বালা ও এক জোড়া কানের দুল চুরি করে নিয়া যায় চোরের দল।
ওই ঘটনার সূত্র ধরে জলঢাকা থানা পুলিশের একটি দল চোরদের গ্রেপ্তারসহ চুরি যাওয়া মালামাল উদ্ধারে মাঠে নামে।
গত ২৪ জুন থেকে ২৬ জুন সকাল পর্যন্ত নীলফামারী ও পঞ্চগড় জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে চোর চক্রের প্রধান কুখ্যাত চোর ফজলসহ তার পাঁচ সহযোগীকে গ্রেপ্তার করা হয়।
এসময় চোরাই দুই টি মোটরসাইকেল, এক জোড়া করে স্বর্ণের হাতবালা ও কানের দুল উদ্ধার করা হয়।
ওসি ফিরোজ কবির আরো জানান, সোমবার বিকেল গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতে হাজির করা হয়। আদালতে বিজ্ঞ বিচারক ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী রের্কড করে আসামীদের জেলা কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।
নীলফামারীর পুলিশ সুপার (সদ্য পদোন্নতি প্রাপ্ত অতিরিক্ত ডিআইজি) মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান বলেন,‘গ্রেপ্তারকৃত চোর চক্রের প্রধান কুখ্যাত চোর ফজল আলীর বিরুদ্ধে নীলফামারী জেলাসহ আশপাশের জেলার থানায় ২৭টি চুরির মামলা রয়েছে।
তার নেতৃত্বে র্দীঘ দিন থেকে জলঢাকাসহ নীলফামারী জেলা এবং আশপাশের বিভিন্ন জেলায় অভিনব কায়দায় বাড়ি-ঘরে প্রবেশ করে চুরি করে আসছিল গ্রেপ্তার হওয়া এই চোর চক্র। চোরের দল এসব এলাকার বাড়ির টিউবওয়েল এবং পানির ট্যাংকের ভেতরে চেতনানাশক ঔষধ মিশিয়ে দেয়। পরে ওই টিউবওয়েল বা ট্যাংকির পানি পান করে বাড়ির সদস্যরা অচেতন হয়ে পড়লে তারা বাড়িঘরে প্রবেশ করে আলমিরা, ওয়ার ড্রপ থেকে নগদ অর্থ, স্বর্ণালঙ্কার, এবং বাড়িতে থেকে মোটরসাইকেল চুরি করে নিয়ে যেত বলে আদালতের বিজ্ঞ বিচারকের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ