• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্যকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

সিসি নিউজ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরের এক কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনায় বিজিবি সদস্য মো. আকতারুজ্জামানকে চার সপ্তাহের মধ্যে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে আসামিকে অব্যাহতি দেয়া নিম্ন আদালতের আদেশ ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন আদালত।

বুধবার বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি সাহেদ নুর উদদীনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে কিশোরীর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট বদরুন নাহার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

গত ১৫ জুন নীলফামারীর সৈয়দপুর থেকে এক কিশোরী তার মাকে সঙ্গে নিয়ে হাইকোর্টে আসে ধর্ষণকারীর বিচার চাইতে। বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি সাহেদ নুর উদদীনের হাইকোর্ট বেঞ্চে সে বিচার দাবি করে।

সেদিন সকালে আদালতের বিচারিক কার্যক্রম শুরু হলে ওই কিশোরী তার মাকে নিয়ে ডায়াসের সামনে এসে দাঁড়ায়। এ সময় আদালত তার কাছে জানতে চান, কী হয়েছে? আপনি কে? আপনি কী বলতে চান? আপনার সঙ্গে উনি কে? তখন ওই কিশোরী হাইকোর্টকে নিজের পরিচয় দেয়।

ওই কিশোরী আদালতকে বলে, ‘আমার বয়স ১৫ বছর। উনি আমার মা। আমি ধর্ষণের শিকার। একজন বিজিবি (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ) সদস্য আমাকে ধর্ষণ করেছে। কিন্তু নীলফামারীর আদালত তাকে খালাস দিয়েছেন। আমরা গরিব মানুষ, আমাদের টাকা-পয়সা নেই। আমরা আপনার কাছে বিচার চাই।’

এ সময় আদালত ওই কিশোরীর কাছে জানতে চান যে, তার কাছে কোনো কাগজপত্র আছে কি না? ওই কিশোরী মামলার কাগজ আছে বললে আদালত উপস্থিত আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেন, এখানে লিগ্যাল এইডের কোনো আইনজীবী আছেন? তখন আদালতে উপস্থিত থাকা লিগ্যাল এইডের প্যানেল আইনজীবী বদরুন নাহার দাঁড়ালে তাকে ওই কিশোরীর মামলাটি সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইডের মাধ্যমে নিতে নির্দেশ দেন। পরে সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইড থেকে কিশোরীর পক্ষে আপিল করা হয়।

উল্লেখ্য যে, ২০২০ সালের ২১ নভেম্বর নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের বালাপাড়ার (ব্রাহ্মণপাড়া) ভুক্তভোগি কিশোরীর মা সৈয়দপুর থানায় মেয়েকে ধর্ষনের অভিযোগে প্রতিবেশি বিজিবির ন্যান্স নায়েক মো. আকতারুজ্জামানকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে। অভিযোগে বলা হয়, মেয়েটি তখন স্থানীয় একটি স্কুলের নবম শ্রেনীর ছাত্রী ছিল। ওই বছরের ৯ নভেম্বর রাত থেকে পরদিন কোন এক সময় চেতনানাশক কোন কিছু খাইয়ে তাকে ধর্ষণ করে আকতারুজ্জামান। ২০২১ সালের ৩১ ডিসেম্বর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাহিদুর রহমান আদালতে চুড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদনে ধর্ষনের কোন আলামত মেলেনি উল্লেখ করা হয়। এছাড়াও মামলায় তথ্যগত ভূল আছে বলেও আদালতকে জানায় পুলিশ।

ধর্ষণ আলামত নষ্টের অভিযোগ পরিবারের

হাইকোর্টের এজলাসে এসে ধর্ষণের বিচার চাওয়া সেই কিশোরীর ধর্ষণের আলামত কৌশলে নষ্ট করার অভিযোগ উঠেছে আসামী বিজিবি সদস্য আকতারুজ্জামান ও তার পরিজনের বিরুদ্ধে। কিশোরীর চাচী জান্নাতুন ফেরদৌস ও দাদী আম্বিয়া বেগম এমন অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার পরদিন (১০ নভেম্বর, ২০২০) সকালে আসামীর বোন পারুল তাদের (ভিকটিম) বাড়িতে এসে মেয়েটির পরনের জন্য পোষাক চায়। এর কারণ জানতে চাইলে পারুল তাদেরকে জানায়, রাতে খাবারের সময় মাংসের ঝোল পড়ার কারণে তার পরনের পোষাক ধুয়ে দিয়েছে। পরবর্তীতে জানতে পারি, রাতেই মেয়েকে গোসল করানো হয়েছে সাজেদা ক্লিনিকে।

চাচী জান্নাতুন ফেরদৌস জানান, ওইদিন রাত ৯টার দিকে আসামী মোটরসাইকেল যোগে মেয়েকে নিয়ে এসে বাড়ির বাইরে রেখে চলে যায়। এ সময় আমি নিজেই মেয়েকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে অসংলগ্ন কথাবার্তা বলতে থাকে। পরদিন স্থানীয় হুজুরের নিকট ঝাঁড়ফুক করানো হয়। এতেও কোন ফললাভ না হওয়ায় নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখান থেকে ছাড়পত্র নিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ছাড়পত্রে যৌন নিপীড়নের কথা উল্লেখ করা হয়।

কিশোরীর দাদী আম্বিয়া বেগম জানান, আমার ছেলে আজাদ মন্ডল (ভিকটিমের বাবা) ভ্যানচালক। তার আয়ের টাকায় ৫জনের সংসার চলে। নাতনী আমার মেধাবী ছাত্রী। এবারে সে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেবে। এ ঘটনার পর সে পড়াশোনায় মন বসাতে পারছে না। ঘটনার রাতে আসামী আমার নাতনীকে অচেতন করে ধর্ষণ করেছে। চেতনানাশকের কারণে বেশ কিছুদিন সে অসংলগ্ন কথাবার্তা বলেছে, যা এখনও চিকিৎসা চলছে। পরে কিছুটা সুস্থ্য হলে তার ওপর যৌন নিপীড়নের কথা জানান।

কিশোরীর দু’জন সহপাঠি জানান, সে (ভিকটিম) খুবই নম্র স্বভাবের মেয়ে। তার আচরণে কখনও উগ্র বা মানসিক ভারসাম্য দেখি নাই। সে মেধাবী ও মিশুক। সে কখনও স্কুল ফাঁকি দেয় নাই। তবে ওই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ রেজাউল করিম এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

কিশোরীর বাবা ভ্যানচালক আজাদ মন্ডল ও চাচা আতাউর রহমান মন্ডল জানান, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তদন্তকারী কর্মকর্তা মেয়েটির জবানবন্দি নেন। অথচ সুস্থ্য হওয়ার পর তিনি একবারও মেয়েটির কাছে ঘটনার বর্ণনা জানতে চাননি। তিনি ভিকটিমের অসুস্থ্যতার সময়ে সুুকৌশলে বিচারকের কাছে হাজির করে জবানবন্দি রেকর্ড করান।

তবে এমন অভিযোগ উদ্দেশ্যপ্রনোদিত আখ্যায়িত করে তদন্তকারী কর্মকর্তা সৈয়দপুর থানার এসআই মো. সাহিদুর রহমান জানান, মামলার বাদিনীর (ভিকটিমের মা মোকছেদা বেগম) উপস্থিতিতে ভিকটিমের ২২ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন বিচারক। তখন ভিকটিম সম্পুর্ণরুপে সুস্থ্য ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ