• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন |

পাঁচবিবিতে আ’লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র নারী প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন

জয়পুরহাট প্রতিনিধি।। আগামী ২৭ জুলাই জয়পুরহাটের পাঁচবিবি পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর কর্মীরা স্বতন্ত্র নারী প্রার্থী সাবেকুন নাহার শিখা’র পক্ষের সমর্থক-প্রস্তাবকদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে তাদের মত পরিবর্তন করাচ্ছেন, এমন অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেন ওই নারী মেয়র প্রার্থী। শনিবার দুপুরে পাঁচবিবি পৌর শহরের দানেজপুর এলাকায় নিজ বাস ভবনে তিনি এই সংবাদ সম্মেলন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন-একই এলাকার ফরহাদ হোসেন, সাইফুল ইসলাম, মানিক মন্ডল, মৌসূমী আক্তারসহ গন্যমান্য ব্যাক্তিরা।

শিখা অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনের নিয়ম অনুযায়ী প্রাথমিক ভাবে মনোনয়ন পত্র যাচাই-বাছাইয়ের জন্য ১০০ জন সাধারন সমর্থকের প্রয়োজন হয়। সে নিয়ম অনুযায়ী সকল নিয়ম মেনে স্থানীয় পাঁচবিবি উপজেলা নির্বাচন কার্যালয়ে তার পক্ষের সকল সাধারন সমর্থক ও প্রস্তাবকের স্বাক্ষর সম্বলিত কাগজপত্রসহ তার মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন তিনি।

গত ৩০ জুন বৃহষ্পতিবার মনোনয়ন পত্র যাচাই-বাছাই করার দিন তিনি তার পক্ষের সমর্থক নার্গিস আক্তারকে সঙ্গে নিয়ে পার্শ্ববর্তী আটাপুর ইউনিয়নে যান। সেখান থেকে নার্গিস আক্তারকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে মটর সাইকেলে করে তুলে নিয়ে যান আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবের কর্মীরা। পরে তাকে দিয়ে জোর করিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তার মত বদলাতে করতে বাধ্য করানো হয়। ওই সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর কর্মীদের পরিবেষ্টিত নার্গিস আক্তার বলতে বাধ্য হন যে, তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক নন।

এ ছাড়া অন্যান্য প্রস্তাবক ও সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে একই হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন স্বতন্ত্র নারী মেয়র প্রার্থী। এ ব্যাপারে আরো তথ্য প্রমান সংরক্ষিত রয়েছে যার ভিত্তিতে আইনের আশ্রয় নিবেন বলেও জানান তিনি।

তবে গতকালের সেই সংবাদ সম্মেলনে দেখা যায় তিনি অপরিচিতি এক পারিবারিক পরিবেশে লিখিত বক্তব্য পাঠ করছেন। সেখানে তিনি বলেন যে তিনি শিখার কর্মী বা সমর্থক নন, অনুদান দেওয়ার কথা বলে শিখা তার কাছ থেকে জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি নেন।

এ ব্যাপারে আওয়ামীলীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘ গত প্রায় ১ যুগ ধরে আমি পাঁচবিবি পৌর সভায় মেয়রের দায়িত্ব পালন করছি, জননিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা ছাড়াও উত্তর বঙ্গের মধ্যে এ পৌরসভার ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি এ শহরকে পর্যটন নগরীতে রুপান্তর কার্যক্রমের বাস্তবায়ন করে চলেছি। সন্ত্রাস ও হুমকি-ধমকির কোন আশ্রয়-প্রশ্রয় দেইনি বলে এবং এসব উন্নয়ন কার্যক্রমের ধারা অব্যাহত রাখতে দল আবারো আমাকে মেয়র প্রার্থীর যোগ্য মনে করেছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে যিনি আমাকে অভিযুক্ত করার চেষ্টা করছেন, সেটা নিছক তার মনগড়া, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। এ খানে সুষঠু নির্বাচন হলে পৌরবাসী আবারো আমাকে তাদের রায় দেবেন বলে আমি বিশ্বাস করি।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ