• রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে জেলা কৃষক লীগের সম্মেলণ বর্জণের ঘোষণা

নীলফামারী প্রতিনিধি।। বাংলাদেশ কৃষক লীগ নীলফামারী জেলা শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলণ বাতিলের দাবিতে নীলফামারীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বুধবার বেলা ১১টার দিকে বাংলাদেশ কৃষক লীগ নীলফামারী জেলা ও উপজেলা শাখার যৌথ ব্যানারে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনার চত্বর থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে শহিদ মিনার চত্বরে সমাবেশে মিলিত হয়।
ওই সমাবেশ থেকে সম্মেলণ প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক ও সদস্য সচিব এর স্বৈরাচার-স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদে জানিয়ে ২৫ জুলাই আহ্বানকৃত জেলা কৃষকলীগের সম্মেলন বর্জণের ঘোষণা দেন নেতাকর্মীরা।
বাংলাদেশ কৃষক লীগ নীলফামারী জেলা শাখার সভাপতি অক্ষয় কুমার রায়ের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা দেন জেলা কৃষক লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক স্বপ্না রানী রায়, সদর উপজেলা কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক করুনা কান্ত রায়, ডোমার উপজেলার শাখার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সাদেকুর ইসলাম মনা, ডিমলা উপজেলা শাখার আহ্বায়ক মোহাম্মদ খোকন প্রধান, জলঢাকা উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আশরাফ আলী প্রমুখ।
বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, গঠনতন্ত্র মোতাবেক সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির কাজ সম্মেলন প্রস্তুত করে জেলা কমিটির কাছে উপস্থাপন করা। সম্মেলন আহ্বান করবে জেলা কমিটি। কিন্তু সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি সেটি না করে অসাংগঠনিকভাবে ২৫ জুলাই জেলা সম্মেলনের আহ্বান করেছেন যা সংগঠনের গঠনতন্ত্র বিরোধী।’
বক্তারা আরও অভিযোগ করেন, ‘জেলা কমিটি ব্যতিত নতুন কমিটি গঠন, কোন কমিটি ভাঙা বা পুণগঠন প্রস্তুতি কমিটি করতে পারে না। তারপরও ওই সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক ইয়াহিয়া আবিদ এবং সদস্য সচিব আজাহারুল ইসলাম বিভিন্ন দল থেকে অনুপ্রবেশকারী, নিজস্ব আত্মীয়-স্বজন, জামায়াত শিবিরের লোকজন নিয়ে বিভিন্ন উপজেলা এবং পৌর কমিটি গঠন করে অনুমোদন দিয়েছেন।’
ওই কমিটি বাতিলসহ নতুন করে প্রস্তুতির মাধ্যমে সম্মেলন আহ্বানের দাবি জানান তারা। অন্যথায় সেদিন হাজারো নেতাকর্মীর বুকের উপর দিয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে সম্মেলন স্থল যেতে হবে বলে হুমকী প্রদান করা হয়।
সংগঠনের জেলা সভাপতি অক্ষয় কুমার রায় বলেন, ‘২০২১ সালের ১৩ জানুয়ারী জেলা কৃষক লীগের সভায় জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াহিয়া আবিদকে আহ্বায়ক এবং সহসভাপতি আজাহারুল ইসলামকে সদস্য সচিব করে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করা হয়। জেলা কমিটির সভাপতি এবং অন্যান্য নেতৃবৃন্দের সঙ্গে পরামর্শ করে ৫১ সদস্যের ওই কমিটির অন্যান্য পদগুলো পূরণ করার কথা। কিন্তু আহ্বায়ক এবং সদস্য সচিব সেটি করেন নি। এমনকি ওই কমিটি অনুমোদনে জেলা কমিটির কোন সুপারিশ গ্রহণ করেননি। বিধায় নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত ২৫ জুলাই আহুত সম্মেলন নিয়ে।’
তিনি দাবি করে বলেন, তিন মাস মেয়াদের সম্মেলণ প্রস্তুতি কমিটির অনুমোদন হয় ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারী। ওই বছরের এপ্রিল মাসে মেয়াদ শেষ হয়। এরপর ২৫ মে এক আবেদনে আরও তিন মাস বর্ধিত করা হলেও সম্মেলন আয়োজনে ব্যর্থ হয়েছে ওই কমিটি। বর্তমানে ওই কমিটির মেয়াদ উর্ত্তীণের বয়স ১০ মাস।’
জেলা কৃষক লীগের সভাপতি অক্ষয় কুমার রায় জানান, ‘বর্তমানে জেলা, উপজেলা, পৌর এবং ইউনিয়ন কমিটিসহ সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা ওই সম্মেলণ বর্জন করছি। এরপরেও যদি মেয়াদ উত্তীর্ণ ওই সম্মেলণ প্রস্তুতি কমিটি কর্তৃক আহ্বাণকৃত সম্মেলণে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আসেন তবে আমাদের বুকের ওপর পা দিয়ে তাদের সম্মেলণে যোগ দিতে হবে।’
আমরা চাই; মেয়াদ উত্তীর্ণ ওই কমিটি বাতিল করে দ্রুত জেলা কমিটির মাধ্যমে সম্মেলণ আয়োজনে নির্দেশ দিবে কেন্দ্র।’
অভিযোগ অস্বীকার করে সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির সদস্য সচিব ইয়াহিয়া আবিদ বলেন, ‘নিয়ম মাফিক কার্যক্রম পরিচালনা করেছে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি। কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে কমিটিগুলো দেয়া হয়েছে। এখানে কোন অনিয়ম করা হয়নি। আজকে যারা বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন তাদের বিষয়টি কেন্দ্রে পাঠানো হবে।
এবিষয়ে বাংলাদেশ কৃষক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও নীলফামারী জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা বিশ্বনাথ রায় বিটু বলেন, ‘আগামী ২৫ জুলাই নীলফামারী জেলা কমিটির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক আহমেদ। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি হলে সেখানে আর জেলা কমিটি থাকে না। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করবে। তবে বিক্ষোভের বিষয়টি নিয়ে কথা বলা হবে।’ বিভিন্ন নির্বাচনে যারা নৌকার বিরুদ্ধে নির্বাচন করেছিলেন তারাই ওই বিক্ষোভ কর্মসূচিতে ছিলেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।’
বাংলাদেশ কৃষক লীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি সমীর চন্দ বলেন,‘ নীলফামারী জেলা কমিটি ইনঅ্যাকটিভ বিধায় সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে। সম্মেলন হলে প্রতিযোগিতা হবে। এখানে নিয়মমাফিক সম্মেলনের প্রস্তুতি চলছে। ছয় মাস আগে তারা এরকম অভিযোগ করতে পারতো। এখন সম্মেলন নসাৎ করার জন্য তারা এমন অভিযোগ করছেন। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির কাজের অগ্রগতির ভিত্তিতে মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ