• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন |

বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলার স্পিনার এখন বাসচালক

সিসি নিউজ ডেস্ক ।। অদৃষ্টের লিখন না যায় খণ্ডন। নিয়তি এমন এক জিনিস, কারও নিয়ন্ত্রণে নেই। কেউ জানে না কখন জীবনের মোড় কোন দিকে ঘুরে যাবে। এক সময়ের রাজাও ভাগ্যের ফেরে পথে বসে যেতে পারেন।

সুরাজ রণদিব জীবনের এই চরম উত্থান-পতনের সাক্ষী হয়েছেন। বাইশ গজে এক সময় ব্যাটারদের পরীক্ষা নেওয়া শ্রীলঙ্কান স্পিনার এখন জীবনযুদ্ধের কঠিন পরীক্ষা দিচ্ছেন। ২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনাল ও আইপিএল খেলা রণদিবের জীবনের বাঁকই যেন বদলে গেছে চোটের কারণে দ্রুত অবসর নেওয়ায়। ৭ বছরেই আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ইতি ঘটে এই ক্রিকেটারের। এরপর জীবিকার তাগিদে পাড়ি জমান অস্ট্রেলিয়ায়। সেখানে এখন বাস চালাচ্ছেন তিনি।

অফ স্পিনার রণদিবের আন্তর্জাতিক অভিষেক হয় ২০০৯ সালে। মুত্তিয়া মুরালিধরনের ক্যারিয়ার যখন সায়াহ্নে, তখন রণদিবের ওপর বাজি ধরেছিলেন অরবিন্দ ডি সিলভা, অর্জুনা রানাতুঙ্গার মতো কিংবদন্তিরা। কিন্তু বারবার চোটে পড়ায় পূর্বসূরিদের বাজির ঘোড়া হয়ে ওঠা হয়নি। ২০১৬ সালে ৩১ বছর বয়সে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিতে বাধ্য হন তিনি।

খেলা ছাড়ার পর আর ক্রিকেটের সঙ্গে থাকেননি রণদিব। পরিবার নিয়ে চলে যান অস্ট্রেলিয়ায়। এক সময় যে হাতের ভেলকি বুঝতে না পেরে দ্বন্দ্বে পড়ে যেতেন ব্যাটাররা, সেই হাতই এখন সামলায় বাসের স্টিয়ারিং।

শ্রীলঙ্কার হয়ে ১২ টেস্ট, ৩১ ওয়ানডে ও ১৭ টি-টোয়েন্টি খেলেছেন রণদিব। তিন সংস্করণ মিলিয়ে নিয়েছেন ৮৬ উইকেট। ক্যারিয়ার জুড়ে চোট তো ছিলই, আবার চোট থেকে ফিরলেও সিনিয়র সতীর্থ রঙ্গনা হেরাথকে জায়গা করে দিতে নিজেকে বসে পড়তে হতো। নয়তো ম্যাচ আর উইকেটের ট্যালিটা আরেকটু লম্বা হতে পারত।

২০১১ বিশ্বকাপে চোটাক্রান্ত অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের পরিবর্তে দলে ঢোকেন রণদিব। ভারতের বিপক্ষে ফাইনালও খেলেন। কোনো উইকেট না পেলেও বেশ নিয়ন্ত্রিত বোলিং করেন (৯ ওভারে ৪৩ রান)।

একই বছর রণদিব আইপিএলও খেলেন। তাঁকে কিনেছিল চেন্নাই সুপার কিংস। মহেন্দ্র সিং ধোনির দলের হয়ে ৮ ম্যাচ খেলার সুযোগ পান। নেন ৬ উইকেট।

শ্রীলঙ্কার হয়ে বিশ্বকাপ জেতা না হলেও চেন্নাইয়ের হয়ে ঠিকই আইপিএল শিরোপা জিতেছেন রণদিব। খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলা ক্যারিয়ারটা এরপর তো চিরতরে পঙ্গুত্ব বরণ করল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ