• রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ০১:০০ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে সাহিত্য মেলার প্রথম দিনে পরিণত হয়েছে কবি-সাহিত্যিকের মিলন মেলায়

সিসি নিউজ।। তৃণমূলের সাহিত্যিকদের সৃষ্টিকর্ম জাতীয় পর্যায়ে ছড়িয়ে দেয়ার প্রত্যয়ে নীলফামারীতে শুরু হয়েছে দুই দিনের জেলা সাহিত্য মেলা। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে মেলার উদ্বোধন করেন দেশ বরেণ্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাতীয় সঙ্গীতের সঙ্গে উত্তোলন করা হয় জাতীয় পতাকা। এপর বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে সূচনা ঘটানো হয় সম্মেলনের। উদ্বোধনের পর প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংস্কৃতি বান্ধব। বাংলাদেশকে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় সোনার বাংলা গড়তে তৃণমূলের সাহিত্য-সংস্কৃতিকে জাগিয়ে তুলতে বদ্ধপরিকর। সারাদেশের তৃণমূলের সাহিত্য-সংস্কৃতি চর্চাকে জাতীয় পর্যায়ে ছড়িয়ে দিতে কাজ শুরু করেছেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী। তারই ধারাবাহিকতায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং বাংলা একাডেমির সমন্বয়ে নীলফামারী জেলার ন্যায় দেশের প্রতিটি জেলায় আয়োজন করা হচ্ছে জেলা সাহিত্য মেলা। তৃণমূলের কবি-সাহিত্যিক কবিতা, গল্প, উপন্যাস ছোট গল্প লিখে আলোর ছটা ছড়াচ্ছেন সমাজে। সে আলো আমরা পৌঁছাতে চাই সর্বোচ্চ পর্যায়ে।’ তৃণমূলের সাহিত্যকে পাকা দালানের ভেতর আবদ্ধ না রেখে উন্মুক্ত করার আহ্বান জানিয়ে বরেণ্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জান নূর বলেন, ‘আপনারা যারা তৃণমূলের কবি-সাহিত্যিকগণ রয়েছেন নিজেদের সৃষ্ট সাহিত্যকর্ম গুলোকে পাকা দালান ঘরে আবদ্ধ করে না রেখে জনম্মুখে উন্মুক্ত করুন। দেখবেন আপনাদের সৃষ্ট সাহিত্যকর্ম দেশের মানুষের কল্যাণে আসবে। যা বাংলাদেশকে অসাম্প্রদায়িক চেতনার সোনার বাংলা গড়ে তুলতে বড় ভূমিকা রাখবে।’ সংস্কৃতি চর্চা থেকে আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি মন্তব্য করে এমপি আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘সংস্কৃতি চর্চার অভাবে দেশে অপসংস্কৃতির চর্চা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আজ ছাত্ররা শিক্ষকের গায়ে হাত তুলছে, এটি একটি অপসংস্কৃতির চর্চা। হাত দেওয়ার জায়গা আছে, সেটি হলো শিক্ষকের পা, ওই পায়ে হাত দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো। তাছাড়া শিক্ষকের গায়ে কোথাও হাত দেওয়ার জায়গা নেই। অপরদিকে নারীরা নির্যাতিত হচ্ছেন, মন্দিরে হামলা হচ্ছে, এর কারণ সংস্কৃতি চর্চা থেকে আমরা পিছিয়ে যাচ্ছি।’ অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘শিশুদের গোল্ডেন এ প্লাস পেতে অভিভাকরা মরিয়া হয়ে উঠেছেন। কিন্ত নৈতিক শিক্ষা থেকে শিশুরা পিছিয়ে যাচ্ছে, সেদিকে খেয়াল রাখেন না। লেখা পড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা, গল্প কবিতাসহ সংস্কৃতি চর্চায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে তাদেরকে।’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তৃতায় বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা বলেন,‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাহিত্যকে গণমুখী করার কথা বলে গেছেন । সাহিত্য হতে হবে মানুষের জন্য। স্থানীয় সাহিত্যিকদের কেন্দ্রীয় সাহিত্যে একিভূত করতে জেলায় জেলায় সাহিত্য মেলার আয়োজন চলছে। এক বছরের মধ্যে দেশের সব জেলায় এই সাহিত্য মেলা সম্পন্ন করা হবে। এ ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুবই আন্তরিক।’ নীলফামারীর প্রেক্ষাপট ঘিরে তিনি বলেন,‘তেভাগা আন্দোলন, নীল বিদ্রোহ, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ ঘিরে নীলফামারী জেলায় রয়েছে অনেক ইতিহাস। সাহিত্য এ জেলাকে করেছে আলোকিত।’ অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসাবে ভার্সচ্যুয়ালী সংযুক্ত হয়ে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন কথা সাহিত্যিক ও বাংলা একাডেমির সভাপতি সেলিনা হোসেন। এসময় তিনি বলেন,‘ নীলফামারী জেলার কবি-সাহিত্যিকদের সাহিত্যকর্মে ব্যস্ত রাখতে এবং তাদের উৎসাহ যোগাতে তাদের সাহিত্যকর্ম নিয়ে আমরা একটি বই বের করতে চাই। আগামীতে আমরা জাতীয় পর্যায়ে সাহিত্য মেলা আয়োজন করবো নীলফামারীতে।’ বাংলা একাডেমির সমন্বয়ে এবং সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় ও নীলফামারী জেলা প্রশাসন আয়োজিত মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্বে করেন জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন। বাংলা একাডেমির পরিচালক নূরুন্নাহার খানমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য রাবেয়া আলিম, সূচনা বক্তা বাংলা একাডেমির সচিব এ.এইচ.এম লোকমান, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব অসীম কুমার দে, নীলফামারীর পুলিশ সুপার (সদ্য পদন্নোতি প্রাপ্ত অতিরিক্ত ডিআইজি) মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান, পৌরসভা মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ। মেলার আয়োজনে আনন্দিত জেলার কবি-সাহিত্যিক লেখকরা। তাদের মধ্যে লেখক ও গবেষক আইনজীবী জাহাঙ্গীর আলম সাগর বলেন,‘নীলফামারী জেলায় প্রথম এমন আয়োজনে আমরা সকলে আনন্দিত। এমন আয়োজনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি, সেই সাথে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বাংলা একাডেমিকে। এ আয়োজনের মধ্য দিয়ে অনেক প্রতিভার বিকাশ ঘটবে। আরও চর্চা হবে সংস্কৃতির, পরিধি বাড়বে জ্ঞানের। চর্চার মধ্য দিয়ে উপকৃত হবে মানুষ ও দেশ।’ আয়োজকরা জানায়, জেলার তিনশতাধিক কবি সাহিত্যিকদের অংশগ্রহনে মেলার প্রথম দিন ছিল সাহিত্য-সংস্কৃতি নিয়ে প্রবন্ধপাঠ, আলোচনা ও লেখক প্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষন দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা, বাংলা একাডেমির উপ-পরিচালক ড. তপন বাগচী। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রথম দিনের সমাপনী ঘটে। মেলার দ্বিতীয় দিন শুক্রবার স্থানীয় কবি সাহিত্যিক তাঁদের নিজেদের লেখা কবিতা ও সাহিত্য পাঠ, কথা সহিত্যেকদের ছোটগল্প ও উপন্যাস পাঠ, নাট্যকারদের নাটক পাঠ অনুষ্ঠিত হবে। শেষে অংশগ্রহনকারীদের মাঝে সনদ বিতরণের মধ্য দিয়ে সমাপনী ঘটবে দু’দিন এই জেলা সাহিত্য মেলার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ