• মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:৩২ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে চিকিৎসক লাঞ্চিতের প্রতিবাদে ফের সংবাদ সম্মেলন

সিসি নিউজ ।। নীলফামারী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ও কর্মচারীকে চড় থাপ্পড় মারার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোশিয়েন (বিএমএ) জেলা শাখা।

বৃহস্পতিবার (১১ আগষ্ট) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে নীলফামারী সিভিল সার্জন কনফারেন্স রুমে বিএমএ নীলফামারীর ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন, বিএমএর সভাপতি ডা. মমতাজুল ইসলাম মিন্টু, সহসভাপতি ডা. মজিবুল হাসান চৌধুরী শাহিন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গত ১ আগস্ট দুপুর দুইটার দিকে জেলা শহরের টুপির মোড় এলাকার আবু হানিফাকে (৫৭) বুকে ব্যাথা নিয়ে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে আসেন তার স্বজনরা। এসময় প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। পরে অ্যাম্বুলেন্সে উঠার সময় ওই তিনি মারা যান। মৃতের স্বজনরা লাশ নিয়ে যাওয়ার সময় নীলফামারী পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. মাহফুজার রহমান শাহ্ ১৫ থেকে ২০ জনকে সঙ্গে নিয়ে জরুরী বিভাগে প্রবেশ করে চিকিৎসকসহ অ্যাম্বুলেন্স চালক আনোয়ার হোসেনকে মারধর করেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক, নার্স, ওয়ার্ডবয়কে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজসহ তাদেরকে শারিরীকভাবে হেনস্তা ও সরকারি কাজে বাধা প্রদান করেন। ‘এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও গ্রেপ্তার হননি ওই আসামী।’

এ ছাড়াও গত সোমবার (৮ আগষ্ট) বেলা ১১টার দিকে জেলা শহরের চৌরঙ্গী মোড়ে বিএমএ জেলা শাখা ও জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তৃতীয়, চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারী সমন্বয় পরিষদের যৌথ আয়োজনে মানববন্ধন হয়। ঘটনার পর থানায় মামলা দায়ের করেন হাসপাতালের তত্বাবধায়ক মো. আবু আল হাজ্জাজ।

সংবাদ সম্মেলনে সহসভাপতি হুসিয়ারী উচ্চরন করে বলেন, আগামী রবিবার (১৪ আগষ্ট) মধ্যে আসামী গ্রেফতার করা না হলে নীলফামারী পৌর শহরের প্রত্যেকটি ক্লিনিক ও প্রাইভেট প্র্যাক্টটিস বন্ধ করা হবে। অপরদিকে, আসামী মাহফুজ একজন জনপ্রতিনিধি ও একটি রাজনৈতিক দলের সক্রিয় সদস্য হওয়ায় প্রকাশ্যে ঘুর বেড়ালেও পুলিশ তাকে গ্রেফতার করছে না। এর পিছনে একটি বড় শক্তি কাজ করছে বলে জানায়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত পৌর কাউন্সিলর মো. মাহফুজার রহমান শাহ্ সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘ওই রোগি আমার ওয়ার্ডের বাসিন্দা। রোগিকে হাসপাতালে নেওয়ার ৩০ থেকে ৩৫ মিনিট পার হলেও চিকিৎসক তাকে দেখেননি বলে স্বজনরা আমাকে অভিযোগ করেন। এরই মধ্যে রোগির মৃত্যু হয়। সেখানে পৌঁছে স্বজনদের মধ্যে আহাজারী ও উত্তেজনা দেখতে পাই। একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমি তাদের শান্ত করি। আমার মাধ্যমে চিকিৎসক, নার্স এবং কোনো কর্মচারী লাঞ্চিতের ঘটনা ঘটেনি।’ তিনি দায়েরকৃত ওই মামলার নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করেন।

নীলফামারী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুর রউপ বলেন, ‘সরকারি কাজে বাধা, এবং চিকিৎসক নার্স কর্মচারীদের লাঞ্চিত করার অভিযোগে গত ২ আগাস্ট পৌর কাউন্সিলর মো. মাহফুজার রহমান শাহ্রে বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়। মামলা দায়েরের পর থেকে আসামী পলাতক থাকায় গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। আসামী গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যহত আছে।’ তিনি বলেন, আসামী গ্রেফতারে আমরা সর্বাত্তক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এ ছাড়াও তাকে প্রেফতার করার জন্য র‌্যাবও আমাদের সাথে কাজ করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!