• মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে পূর্ব শক্রতার জেরে যুবককে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ

সিসি নিউজ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে পূর্ব শক্রতার জের ধরে রেজওয়ান খান ওরফে শিমু (৩২) নামের এক যুবককে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। গত ১৫ আগষ্ট রাতে নির্যাতন ও মারপিটের শিকার ওই যুবকের বাবা উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য লুৎফর রহমান খান নিজে বাদী হয়ে থানায় ওই লিখিত অভিযোগ করেন। লক্ষণপুর বাড়াইশালপাড়া (ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় সংলগ্ন) বাসিন্দা বিশাদু মামুদের ছেলে ইউপি সদস্য (মেম্বার) মো. রফিকুল ইসলাম ও তাঁর সহোদর গ্রাম পুলিশ মতিউল ইসলামসহ আরো অজ্ঞাতনামা ৩/৪ জনের  বিরুদ্ধে ওই অভিযোগ করা হয়। আর এ অভিযোগ পেয়ে মঙ্গলবার সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. মফিদুল হক অভিযোগের বিষয়ে তদন্তের কাজ শুরু করেন।
থানায় দেয়া অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তিন নম্বর বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের লক্ষণপুর পাঠানপাড়ার  বাসিন্দা সাবেক ইউপি সদস্য মো. লুৎফর রহমান খাঁনের দ্বিতীয় পুত্র রেজওয়ান খান ওরফে শিমু (৩২)। ঘটনার দিন গত ৭ আগস্ট রেজওয়ান খান ওরফে শিমু চৌমুহনীবাজারে জনৈক ব্যক্তির সেলুনের দোকানে বসে পত্রিকা পড়ছিলেন। এ সময় পূর্ব শক্রতার জের ধরে বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ মতিউল ইসলাম তাকে (শিমু) অপমানজনক কথাবার্তা বলেন। এতে শিমু প্রতিবাদ করলে গ্রাম পুলিশ মতিউল সেখানে তাকে চড় থাপ্পর ও কিলঘুষি মারতে মারতে পাকা রাস্তার মধ্যে নিয়ে আসেন। এরপর  সেখানে থেকে তাকে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের বিট পুলিশিং কক্ষে গিয়ে নিয়ে বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য রফিকুল ও  তাঁর ভাই মতিউল তাকে নির্দয়ভাবে মারপিট করে এবং তাঁর পকেটে টাকা অটোরিকশার ব্যাটারি কেনার জন্য সঙ্গে থাকা ১৮ হাজার টাকা বের করে নেয়। পরবর্তীতে একটি সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে সেখানে আটকে রাখা হয়। এরপর মারপিটের শিকার শিমু’র বড় ভাই সালেহ আহমেদ খান সাজু লোকমুখে খবর পেয়ে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে যান। সেখানে গিয়ে গ্রাম পুলিশ রবিউলে মাধ্যমে সেখান থেকে  শিমুকে বের করে বাড়িতে গিয়ে আসেন। পরবর্তীতে শারীরিকভাবে অসুস্থ শিমু ওষুধ আনতে চৌমুহনীবাজারে যান। সেখানে আবারও ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম ও মতিউল ইসলামের সঙ্গে শিমু দেখা হলে সে তাদের মারপিট ও  জোরপূর্বক টাকা ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনার  বিষয়ে প্রতিবাদ করলে তারা শিমুর ওপর চরম ক্ষিপ্ত হয় এবং তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।  এর কিছু সময় পর শিমু সেখান থেকে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। এরপর চৌমুহনী থেকে বের হয়ে কদমতলি- পাঠানপাড়ার কাঁচা রাস্তার ধরে বাড়ি ফেরার পথে রফিকুল ও মতিউলসহ অজ্ঞাত আরো ৩/৪ জন শিমুর পথরোধ করে। এরপর সেখান থেকে তাকে অপহরণ করে  লাঠি, লোহার রড দিয়ে  বেদম মারডাং করে। এতে তিনি অচেতন হয়ে পড়লে তাঁর মৃত্যু হয়েছে ভেবে গভীর রাতে তাদের বাড়ি পাশে সদ্য লাগানো একটি আমন ধানক্ষেতের কাঁদা পানির মধ্যে ফেলে রেখে যায় তাকে। পরবর্তীতে গভীর রাতে তাদের বাড়ি অদূরের একটি আমন ধানক্ষেত থেকে মানুষের গোঙানির শব্দ ভেসে আসে। এ সময় ওই সড়কের পাশের বাড়ির যুবক  হেলাল সেখানে গিয়ে শিমুকে কাঁদা পানির মধ্যে পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯ নম্বরে খবর দিলে সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোখলেছুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করেন। এরপর প্রথমে তাকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নেয়া হয়। এরপর সেখানে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি স্থানান্তর করা হয়েছে। মারপিটের শিকার রেজওয়ান খান শিমু গত ৮ আগস্ট থেকে ১৩ আগস্ট পর্যন্ত রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন।
সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. মফিদুল হক ওই ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, অভিযোগের বিষয়টি আমি নিজেই তদন্ত করছি। আজ মঙ্গলবার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় ও ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনার শিকার যুবক শিমু ও অভিযুক্তদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলেছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!